ছুটি না মেনে কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডে টেন্ডার ড্রপের আয়োজন!

প্রকাশ : ০৫ এপ্রিল ২০২০, ০০:০৮ | আপডেট : ০৫ এপ্রিল ২০২০, ০০:১৪

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, কক্সবাজার

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সরকারি-বেসরকারি অফিসে সাধারণ ছুটির মেয়াদ আগামী ৯ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হলেও বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড কক্সবাজার জেলা অফিস তা মানছেন না। সরকারি উন্নয়ন কাজের ২৮টি গ্রুপে টেন্ডার ড্রপিং সরকারি ছুটির দিনে শহরের বাহারছড়া কেন্দ্রীক কতিপয় ঠিকাদারদের সাথে আঁতাত করে তড়িগড়ি করে সম্পন্ন করার আয়োজন নিয়ে জেলাব্যাপী ব্যাপক সমালোচনা চলছে। 

বিজ্ঞপ্তি প্রচার অনুযায়ী ওই ২৮টি গ্রুপের টেন্ডার ড্রপিং এর পূর্বনির্ধারিত সময় সুচি ছিল ৩১ মার্চ পর্যন্ত। কিন্তু সরকারি ছুটি বাড়ানোর কারণ তা আগামী ৬, ৭ ও ১২ এপ্রিল পুন:নির্ধারণ করা হয়েছে। অথচ সরকারি বেসরকারি অফিসের সাধারণ ছুটির মেয়াদ আগামী ৯ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এবিষয়ে প্রজ্ঞাপনও জারি করা হয়েছে। ১০ ও ১১ তারিখ সাপ্তাহিক ছুটি (শুক্র ও শনিবার) থাকায় ১১ এপ্রিল পর্যন্ত টানা ছুটি থাকছে। তবে বর্ধিত ছুটিতে যেসব অফিস খুবই প্রয়োজন, সেগুলো চালু থাকবে, এমনও নির্দেশনা রয়েছে। কিন্তু তা কিছুতেই মানছেন না পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রবীর কুমার গোস্বামী। তিনি সরকারী ছুটি বর্ধিত করনের কোন প্রজ্ঞাপনও পাননি বলে জানান। সরকারি ছুটির দিনে এধরনের টেন্ডার ড্রপিং প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। 

এদিকে, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড কক্সবাজার জেলা অফিস থেকে ২৮টি গ্রুপে টেন্ডার আহবান করা হয়। এসব টেন্ডার ড্রপিং এর তারিখ ছিল ৩১ মার্চ। কিন্তু বর্তমানে করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাবে লকডাউন ছাড়াও ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ১০ দিনের সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে ওই ২৮ টি গ্রুপের টেন্ডার ড্রপিং এর সময় বর্ধিত করে ৬, ৭ ও ১২ এপ্রিল নির্ধারণ করেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। এরমধ্যে ৬ এপ্রিল সকাল ১০ পর্যন্ত পে-অর্ডার ও কাগজপত্র জমাদানের শেষ সময় সীমা বেঁধে দেওয়া হয়।

টেন্ডার আহবান করা উন্নয়ন কাজের ২৮টি গ্রুপের মধ্যে উন্নয়ন কাজে ২৮টি গ্রুপের আইডি নাম্বার গুলো যথাক্রমে 
৪৪১৯৫১, ৪৪৫৩৪৫, ৪৪৫৪১৯, ৪৪৫৩৬৫,৪৪৬২৬৪,৪৪৬২২৭,৪৪৬২১৬ ও ৪৪৫৩৩৭। এই আইডি গুলোর টেন্ডার ড্রপিংয়ের সময় নির্ধারণ করে দেয়া ৬ এপ্রিল সকাল সাড়ে ১১ টা পর্যন্ত। এছাড়াও ৭ এপ্রিল টেন্ডার ড্রপিং এর সময় নির্ধারণ করা হয়েছে টেন্ডার আই নং-৪৪৭০৯২,৪৪৭১০১,৪৪৭১০৪, ৪৪৬৭৮৯, ৪৪৬৬৮০, ৪৪৬৫২০, ৪৪৬৬৭৬, ৪৪৬৬৭৭, ৪৪৬৭৭০, ৪৪৬৭৭২, ৪৪৬৫১৮, ৪৪৬২৩৬ ও ৪৪৬০৫৩।
এছাড়াও ১২ এপ্রিল অবশিষ্ট টেন্ডারগুলো ড্রপিংয়ের কথা রয়েছে। এনিয়ে ঠিকাদারদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন ঠিকাদার জানান, দেশে সংকটময় সময় অতিবাহিত হচ্ছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের ২৮টি গ্রুপে টেন্ডার আহবান করা হয়। এসব গ্রুপ কাজের পূর্বনির্ধারিত টেন্ডার ড্রপিং এর তারিখ ছিল ৩১ মার্চ। কিন্তু বর্তমানে করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাবে লকডাউন ছাড়াও ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ১০ দিনের সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে ওই ২৮ টি গ্রুপের টেন্ডার ড্রপিং এর সময় বর্ধিত করে ৬, ৭ ও ১২ এপ্রিল নির্ধারণ করেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। এরমধ্যে ৬ এপ্রিল সকাল ১০ পর্যন্ত পে-অর্ডার ও কাগজপত্র জমাদানের শেষ সময় সীমা বেঁধে দেওয়া হয় সকাল ১০টায়। কিন্তু পে-অর্ডার কিনে কাগজপত্র প্রস্তুত করতে ৬ এপ্রিল সকাল ১০ টা পর্যন্ত যথেষ্ট সময় নয়। কারণ ব্যাংক সকাল ১০ টার আগে খোলা হয় না। তাই সাড়ে ১১ টায় টেন্ডার ড্রপিং করা সম্ভব নয়। 

তাই সরকারি সাধারণ ছুটির পড়ে টেন্ডার ড্রপিং তারিখ পুনরায় ঘোষণার দাবি জানান।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রবীর কুমার গোস্বামী বলেন, সরকারি বেসরকারি অফিসের সাধারণ ছুটির মেয়াদ আগামী ৯ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে এমন নির্দেশনা তিনি পাননি । তাই স্বাভাবিক নিয়মে অফিস চলছে, সে মতে আগামী ৬, ৭ ও ১২ এপ্রিল যথারীতি টেন্ডার ড্রপিং অনুষ্ঠিত হবে।

প্রসংগত, দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় আগামী ৯ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটির বিষয়টি ভিডিও কনফারেন্সে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিজেই বলেছেন। ছুটির বিষয়ে প্রজ্ঞাপনও জারি করা হয়।’ এনিয়ে সরকারি ছুটির মেয়াদ আর বাড়ানো না হলে আগামী ১২ এপ্রিল যথারীতি সব অফিস-আদালত খুলবে।