মামলা আতঙ্কে মোটরযান চালকরা

সিলেটে বেড়েছে হেলমেট ব্যবহার, হেলমেট ছাড়া মিলছে না জ্বালানি

প্রকাশ : ০৭ নভেম্বর ২০১৯, ১৭:৪৫

মহানগর (সিলেট) প্রতিনিধি
অধিকাংশ চালক হেলমেট ব্যবহার করেন মামলা থেকে বাঁচার জন্য। ফাইল ছবি

নতুন সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ কার্যকর হওয়ার পর থেকে মামলা আতঙ্কে রয়েছেন সিলেটের মোটরযান চালকরা। নভেম্বর প্রথম দিন থেকেই এই আইন কার্যকর হলেও পুরোনো আইনেই মামলা দেওয়া হচ্ছে। পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, নতুন আইনের বিষয়ে প্রচার কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। যদিও নগরে এখনো পুরোপুরি দৃশ্যমান না এই প্রচার কার্যক্রম।

নতুন সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮-এ মোটরযান চলাচলে নিয়ম ভাঙলে বাড়ানো হয়েছে কারাদণ্ড ও জরিমানার পরিমাণ। আর জরিমানার পরিমাণও অনেক বেশি। যার কারণে সিলেটের মোটরযান চালকদের মধ্যে এক ধরণের ভীতি কাজ করছে। বেশ কয়েকজন মোটরসাইকেল চালকের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, তারা দিনের বেলা মোটরযান নিয়ে বের হন না। রাতের দিকে বের হয়ে মোটরযান নিয়ে চলাচল করলেও ভয় কাজ করে তাদের মধ্যে।

সিলেটে মামলা আতঙ্কের ভয় থাকলেও মোটরসাইকেল চালকদের মধ্যে বেড়েছে হেলমেট পড়ার প্রবণতা। প্রায় ৯০ শতাংশ চালকই হেলমেটের ব্যবহার করছেন মামলা থেকে বাঁচার জন্য। পাশাপাশি বর্তমানে হেলমেট ছাড়া জ্বালানি না মেলার কারণেও বেড়েছে হেলমেটের ব্যবহার। যদিও শুরুর দিকে হেলমেট ছাড়াও জ্বালানি দিতেন। কিন্তু পুলিশের পক্ষ থেকে কড়া নির্দেশনা ও মনিটরিংয়ের পর থেকে হেলমেট ছাড়া জ্বালানি দেওয়া হচ্ছে না। তবে কিছু কিছু চালক রয়েছেন যারা হেলমেট ছাড়া জ্বালানি নিতে এসে অন্যজনের হেলমেট ব্যবহার করে জ্বালানি নিচ্ছেন। এই বিষয়টিকে বেশ খারাপ চোখেই দেখছেন সচেতন চালকরা।

তারা বলছেন, এভাবে কেউ হেলমেট চাইলে তাকে দেওয়া উচিত না। এতে করে সে পরবর্তীতে হেলমেট কিনতে বাধ্য হবে এবং সেটি ব্যবহার করে সড়কে গাড়ি নিয়ে চলাচল করবে।

সিলেট নগরের দরগাহ গেট এলাকার বাসিন্দা এনামুল হক বলেন, নতুন সড়ক আইন প্রণয়ণের পর ভয়ে আমি হেলমেট কিনেছি। কারণ হেলমেট ছাড়া যান চলাচলে এখন জরিমানার পরিমাণ বাড়ানো হয়েছে। তবে ভয় থাকলেও এখন নিজেকে একজন সচেতন চালক মনে হচ্ছে। এটি আসলেই ভালো হয়েছে। ভয় থাকলেও এই আইনের কারণে অনেক দুর্ঘটনার হাত থেকে নিজেরা বাঁচতে পারবো সহজেই।

নতুন আইনের ব্যাপারে সিলেট ট্রাফিক বিভাগ বলছে, সিলেটে মাইক যোগে প্রচার কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। নতুন আইন সম্পর্কে অনেকে চালকই বেশি কিছু জানেন না।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (গণমাধ্যম) জেদান আল মূসা বলেন, সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে সিলেটের পুলিশ প্রশাসন দীর্ঘদিন থেকে আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে। পাশাপাশি ট্রাফিক পুলিশের পক্ষ থেকেও বিভিন্ন সময় নানা উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়ে থাকে। নতুন আইনের কারণে চালকদের ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই। যারা আইন মানবেন তাদেরজন্য চলতে ফিরতে কোনো ধরণের বাঁধা আসবে না।

পিডিএসও/হেলাল