‘জনযুদ্ধ’ ও ‘সর্বহারা’ পরিচয়ে ৩৫ শিক্ষককে হত্যার হুমকি

প্রকাশ : ২১ অক্টোবর ২০১৯, ২০:৩০

নড়াইল প্রতিনিধি

নড়াইলের তিনটি কলেজের অন্তত ৩৫ জন শিক্ষকের কাছে ‘জনযুদ্ধ’ ও ‘সর্বহারা’ পরিচয়ে প্রায় ৭০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়েছে। চাঁদা না দিলে পরিবারের সদস্যসহ শিক্ষকদের অপহরণ এবং হত্যারও হুমকি দেওয়া হয়েছে। কলেজ তিনটি হচ্ছে ভিক্টোরিয়া কলেজ, নড়াইল মহিলা কলেজ এবং লোহাগড়া কলেজ। গত তিন দিন ধরে জনযুদ্ধের আঞ্চলিক কমান্ডার ‘হাতকাটা বিপ্লব’ ও কেন্দ্রীয় নেতা মহিউদ্দিনের পরিচয়ে শিক্ষকদের ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে এ হুমকি দেওয়া হয়। এ ঘটনায় শিক্ষকদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে। তবে নড়াইলের পুলিশ সুপার শিক্ষকদের আস্বস্ত করেছেন।

জানা যায়, সোমবার বিভিন্ন সময় লোহাগড়া সরকারি কলেজের শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক দর্শন বিভাগের প্রভাষক গাজী শহিদুল ইসলাম, ইতিহাস বিভাগের প্রভাষক মো. কবির হোসেন, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক মো. খায়রুজ্জামান, হিসাববিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক কাজী সোহেল রানাসহ ১২ শিক্ষকের প্রত্যেকের কাছে ২ লাখ টাকা করে চাঁদা দাবি করে। না দিলে হত্যাসহ বিভন্ন ধরনের হুমকি দেয়।

লোহাগড়া সরকারি কলেজের ইতিহাস বিভাগের প্রভাষক মো. কবির হোসেন জানান, সোমবার বেলা ১১টার দিকে নিষিদ্ধ চরমপন্থি দল ‘জনযুদ্ধের আঞ্চলিক কমান্ডার হাতকাটা বিপ্লব (০১৯০২-৪১৫৬৮১) নম্বর থেকে ফোন করে বলেন, পার্টির বস মহিউদ্দিনের সঙ্গে কথা বলেন। তখন মহিউদ্দিন ফোনে জানান, আমাদের অনেক কর্মী অসুস্থ। তাদের চিকিৎসার জন্য ২ লাখ টাকা চাঁদা দিতে হবে। যদি কোনো কর্মী চিকিৎসার অভাবে মারা যায় তাহলে তোর ছেলেকে ধরে নিয়ে যাব।

এর আগে গত রোববার একইভাবে নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক ও দর্শন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান এম আব্দুর রহিমসহ এ বিভাগের অপর শিক্ষক আবুল হাসনাত খান, অর্থনীতি বিভাগের এহসানুল হক, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের তরফদার সাজ্জাদ হোসেন টিপু ও প্রসেনজিৎ দাস, উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের শিমুল কুমার ভক্ত, রসায়ন বিভাগের হাসানুজ্জামান ছাড়াও কলেজের ২০ শিক্ষকের কাছে জনযুদ্ধ ও সর্বহারা পরিচয়ে দুই লাখ টাকা করে ৪০ লাখ চাঁদা দাবি করা হয়। এই টাকা বিকাশ নম্বরে দিতে বলা হয়েছে। এদিকে শনিবার সন্ধ্যায় নড়াইল সরকারি মহিলা কলেজের অন্তত তিন শিক্ষকের কাছে একইভাবে জনযুদ্ধ পরিচয়ে চাঁদা দাবি করা হয়। ভিক্টোরিয়া কলেজের প্রভাষক তরফদার সাজ্জাদ হোসেন টিপু জানান, রোববার কলেজে অবস্থানকালে ১১টা ২৯ মিনিটে ০১৯৪৭-৯০৮৯৯৮ নম্বর থেকে তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে কল করে টাকা দাবিসহ অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করা হয়।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন বলেন, বিষয়টি জানার পর সোমবার নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজে শিক্ষকদের সঙ্গে দেখা করে তাদের আশ্বস্ত করেছি। দোষিদের খুঁজে বের করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

পিডিএসও/রি.মা