সীমান্ত জনপদের ত্রাস

বার্মাইয়া হাকিম ডাকাতের নেতৃত্বে ২ স্কুলছাত্রী অপহরণ!

প্রকাশ : ২০ অক্টোবর ২০১৯, ১৬:৩৫

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, কক্সবাজার

দুর্ধর্ষ ডাকাত বার্মাইয়া আব্দুল হাকিমের নেতৃত্বে শীলখালী এলাকা থেকে দুই স্কুলছাত্রী অপহরণ ও বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। অপহৃতরা বাহারছড়া ইউনিয়নের শীলখালী মাঠপাড়া এলাকার বাসিন্দা ও বন বিভাগের বন জায়গীরদার প্রধান (হেডম্যান) আবুল কালামের মেয়ে। তারা দুইজনই টেকনাফ বাহারছড়া শামলাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী বলে প্রধান শিক্ষক এমএ মনজুর জানিয়েছেন।

রোববার দিবাগত আনুমানিক আড়াইটার সময় এই ঘটনা ঘটেছে খবর নিশ্চিত করেছেন স্থানীয় ইউপি সদস্য হুমায়ুন কাদের ও অপহৃতাদের পরিবার।

অপহৃতদের ভাই রিদুয়ান জানান, সশস্ত্র ডাকাতদল রাত আড়াইটার দিকে তাদের বাড়িতে হানা দেয়। ওই সময় ৬০ হাজার টাকা ও বাড়িতে থাকা স্বর্ণালংকারসহ নানা ধরণের খাবার সামগ্রী লুট করে ডাকাতরা। এসময় তার দুই বোনকে অপহরণ করে নিয়ে যায় ডাকাত দল। তারা ঘটনাটি পুলিশকে অবহিত করলে রাত ৩টার দিকে শামলাপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশ দল ও এলাকাবাসীর সহযোগিতায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও পাশের পাহাড়ি এলাকায় রাতভর অভিযান চালান। অপহৃতদের কোনও সন্ধান না পেয়ে চলে আসেন। ডাকাত দলের লোকজনের গায়ে একটি বাহিনীর পোশাক পরিহিত ছিল বলে জানান ভাই রিদুয়ান।

আইনশৃঙ্খলাবাহিনী দুই ছাত্রীকে উদ্ধারের জন্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান অব্যাহত রেখেছে বলে জানিয়েছেন শ্যামলা পুলিশ ফাঁড়ির ইনর্চাজ ইন্সপেক্টর আনোয়ার হোসেন।

রোববার বিকালে এ রিপোর্ট লেখার সময় পর্যন্ত অপহৃতা দুই স্কুলছাত্রীর কোনও সন্ধান মেলেনি।

এলাকাবাসী জানান, কিছুদিন আগে টেকনাফ থানা পুলিশ হেডম্যান আবুল এলাকা থেকে আবদুল হাকিম ডাকাতের স্ত্রী ও ভাইকে গ্রেফতার করেছিল। পরে তারা পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন। এঘটনায় বনবিভাগের বন জায়গীরদার প্রধান (হেডম্যান) আবুল কালামের সহযোগীতা ছিল, এমন সন্দেহ থেকে এ ধরণের ঘটনা সংগঠিত হয়েছে বলে ধারণা এলাকাবাসীর।

পিডিএসও/রি.মা