আহত শতাধিক

ভোলায় সমাবেশ ঘিরে পুলিশ-জনতা সংঘর্ষে নিহত ৪

প্রকাশ : ২০ অক্টোবর ২০১৯, ১৪:২১ | আপডেট : ২০ অক্টোবর ২০১৯, ১৫:৩১

অনলাইন ডেস্ক

ভোলার বোরহানউদ্দিনে ‘তৌহিদি জনতা’র সমাবেশ ঘিরে পুলিশের সঙ্গে জনতার দফায়-দফায় সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে।

এতে এখন পর্যন্ত মাদরাসা ছাত্রসহ ৪ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহত হয়েছেন পুলিশসহ অন্তত শতাধিক মানুষ।

নিহতরা হলেন, মিজান (৪০) ও মাহফুজ পাটোয়ারি (৪৫)। মাহবুব ও শাহীন (২৫)।

স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার কাচিয়া ইউনিয়নের জনৈক বিপ্লব নামের এক হিন্দু তরুণ তার ফেসবুক আইডিতে মহানবী (সা.) ও ইসলামকে কটূক্তি করে পোস্ট দেয়। এ ঘটনায় উপজেলাজুড়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে পুলিশ গতকাল শনিবার ওই তরুণসহ আরো একজনকে আটক করে। এদিকে, ফেসবুকে কটূক্তি করার প্রতিবাদে রোববার বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দেয় মুসল্লিরা।

এরই প্রেক্ষিতে রোববার বেলা ১১টায় বোরহানউদ্দিন হাইস্কুল মাঠে পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। এতে অংশ নিতে উপজেলার প্রত্যেক ইউনিয়ন থেকে কয়েক হাজার লোক একত্রিত হয়ে ‘নবী অবমাননা’ ও ‘আল্লাহকে নিয়ে কটূক্তিকারীর ফাঁসি চাই’- এমন স্লোগান দিয়ে সমাবেশস্থলে আসেন। কিন্তু সমাবেশ শুরুর আগেই তা শেষ করতে তাগাদা দেন পুলিশ। একপর্যায়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে উভয়পক্ষ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিক্ষোভকারীরা পুলিশের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ গুলি ছোড়ে। এতে সাংবাদিক-পুলিশসহ আহত হন অর্ধশতাধিক। আহতদের বোরহানউদ্দিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও ভোলা সদর হাসপাতালে নেয়া হয়।

বোরহানউদ্দিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২ জনের মৃত্যু হয়। তারা হলেন, মিজান (৪০) ও মাহফুজ পাটোয়ারি (৪৫)। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক ডা. মো. শাহীন হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, সংঘর্ষে দুজন গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছেন।

এদিকে, এলাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

পিডিএসও/তাজ