হবিগঞ্জে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী

‘ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে অবদানের জন্য কোনও পুরস্কার গ্রহণ করিনি’

প্রকাশ : ২৪ আগস্ট ২০১৯, ১৬:১৫ | আপডেট : ২৪ আগস্ট ২০১৯, ১৬:৪১

জাকারিয়া চৌধুরী, হবিগঞ্জ

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম বলেছেন, ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে বিশেষ অবদানের জন্য কোনও পুরস্কার বা স্মারক তিনি গ্রহণ করেননি। একটি সংগঠন তাদের প্রথাগত ভাবে তাকে সম্মাননা জানিয়েছে। কিন্তু এটি ভুল ভাবে ব্যাখ্যা করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করছে। এছাড়াও রোহিঙ্গারা তাদের দেশে প্রত্যাবর্তন করাটাই সমাধানের উত্তম পন্থা। এলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে মন্ত্রী পরিষদ কাজ করে যাচ্ছে।

শনিবার সকালে হবিগঞ্জ সার্কিট হাউজে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন মন্ত্রী। পরে তিনি ২ কোটি ৮৫ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত হবিগঞ্জ পৌরসভার কিচেন মার্কেটের উদ্বোধন করেন। 

উদ্বোধন শেষে জেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে হবিগঞ্জ পৌরসভা আয়োজিত শোক সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন মন্ত্রী। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মোঃ আবু জাহির এমপি, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ খান এমপি, গাজী মোহাম্মদ শাহ নওয়াজ মিলাদ এমপি, হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবীর মুরাদ, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা, হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মিজানুর রহমান মিজান, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলামসহ পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তবৃন্দ। 

শোক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, যুদ্ধ বিধ্বস্ত একটি দেশকে যখন স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাচ্ছিলেন বঙ্গবন্ধু ঠিক তখনই একটি গোষ্টি বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যার মাধ্যমে এ দেশকে আবারো ধ্বংসের মুখে ঠেলে দেয়। তাই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মানে কাজ করে যাচ্ছে তারই কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি আরো বলেন, বিএনপি জামায়াত সরকারের আমলে মানুষ খাদ্যের জন্য হাহাকার করত। কিন্তু এখন বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ং সম্পুর্ণ। সাধারণ মানুষদের মধ্যে এখন আর হাহাকার নেই। বাংলাদেশ ধীরে ধীরে উন্নত জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে। 

মন্ত্রী আরো বলেন, বর্তমান সরকার উন্নয়নে বিশ্বাসী। সারা বাংলাদেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় হবিগঞ্জেও ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে। হবিগঞ্জ পৌরসভায় যে সমস্যাগুলো রয়েছে এর মধ্যে ড্রেনেজ ব্যবস্থা ও ময়লা ফেলার জন্য ড্রামপিং ব্যবস্থা অন্যতম। তাই এ দুইটি সমস্যাসহ সকল সমস্যা মাস্টার প্ল্যান তৈরি করে অচিরেই সমাধান করা হবে। পরে বিকেলে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে শোক সভায় অংশগ্রহণ করেন মন্ত্রী। 

পিডিএসও/রি.মা