উপজেলা নির্বাচন

সংবাদ সম্মেলনে এমপি কমলের বিরুদ্ধে কাজলের অভিযোগ

প্রকাশ : ২৩ মার্চ ২০১৯, ১৮:২০

অনলাইন ডেস্ক

কক্সবাজার-৩ আসনের সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমলের সহযোগিতায় রামু উপজেলা নির্বাচনে ৩০ প্রিসাইডিং অফিসারকে ম্যানেজ করে ভূয়া ব্যালটের মাধ্যমে ভোট কারচুপির গভীর ষড়যন্ত্র করছে নৌকা প্রার্থী রিয়াজ উল আলম বলে অভিযোগ করেছেন আনারস প্রতীকের প্রার্থী সোহেল সরওয়ার কাজল।

শুক্রবার বিকালে কক্সবাজারের হোটেল শৈবালের সম্মেলন কক্ষে রামু উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ তুলেন।

কাজল বলেন, আগামী ২৪ মার্চ রামু উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। আনারস প্রতীক নিয়ে আমার নিশ্চিত বিজয় ঠেকাতে স্থানীয় সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল নানান ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছেন।

তিনি বলেন, চলমান উপজেলা নির্বাচনকে অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠুভাবে করার লক্ষ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নির্বাচন কমিশন (ইসি) চ্যালেঞ্জ ঘোষণা করেছেন। যার সুফল ১ম ও ২য় দফা উপজেলা নির্বাচন।

উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী সোহেল সরওয়ার কাজল লিখিত বক্তব্যে আরো বলেন, সাংসদ কমল তার হীন স্বার্থ বাস্তবায়নে তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রিয়াজ উল আলমের পক্ষ অবলম্বন করে প্রকাশ্যে এলাকায় তার কর্মীদের বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছেন।

তিনি দাবী করেন, সাংসদের পক্ষের নেতা কর্মীরা প্রকাশ্যে এলাকায় ঘোষণা দিয়ে যাচ্ছেন’ ৩০ হাজার ভুয়া ব্যালটের মাধ্যমে নির্বাচনে তার পরাজয় নিশ্চিত করা হবে’।

কাজল বলেন, সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল নির্বাচনের আগের দিন রামু উপজেলা নির্বাচনে ৩০ প্রিসাইডিং অফিসারকে ম্যানেজ করে ভূয়া ব্যালটে সিল মেরে ব্যালট বাক্স ভর্তি করে রাখা হবে, দিনের বেলায় সন্ত্রাসীদের দিয়ে ভোট কেন্দ্র দখল করা হবে, ব্যালট কারচুপির মাধ্যমে ভোট ছিনতাই, ভোট কেন্দ্রে আনারস প্রতীকের এজেন্টদের কেন্দ্রে প্রবেশ করত দিবে না সহ বিভিন্ন ভাবে হুমকি অব্যাহত রেখেছে।

তিনি আরও বলেন, তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রিয়াজুল আলমের পক্ষে প্রচার চালানো সুনিদিষ্ঠ অভিযোগ পাওয়ায় ইতোমধ্যেই সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমলকে নির্বাচনী এলাকা ত্যাগ করার নির্দেশ দেন ইসি। এলাকা ত্যাগ করলেও তিনি কক্সবাজার শহরে অবস্থান করে ওখান থেকেই বিভিন্ন ভাবে প্রশাসন ও ভোট কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিসাইডিং অফিসারদের চাপ প্রয়োগের মাধ্যমে এবং মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ম্যানেজ করে রামু উপজেলা নির্বাচনের ভোট কারচুপির ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি তার উৎশৃংখল নেতাকর্মী বিশেষ করে ১১ ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের দিয়ে এলাকায় প্রকাশ্যে, মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আমার কর্মী-সমর্থকদের বিভিন্ন হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদান করে যাচ্ছে।

আনারস প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী সোহেল সরওয়ার কাজল সংবাদ সম্মেলনে আরও বলেন, রামু উপজেলার ১১ ইউনিয়নের সাধারণ ভোটারদের মাঝে আনারস প্রতীকে আমার গ্রহণযোগ্যতা ও জনপ্রিয়তা এবং সুষ্ঠু নির্বাচনে বিজয় সুনিশ্চিত জেনে স্থানীয় এমপির আশীর্বাদপুষ্ট চেয়ারম্যান প্রার্থী রিয়াজ উল আলম আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

সাংবাদিক সম্মেলনে সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমলের ছোট ভাই আমেরিকা প্রবাসী তানভীর সরওয়ার রানা বলেন, আমাদের পরিবারকে এতদিন বিভিন্ন মানুষ বিভিন্নভাবে রাজনীতি করে ফায়দা লুটেছে। আমাদেরকে পারিবারিকভাবে বিচ্ছিন্ন করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল। আমরা এখন বুঝতে পেরেছি, আজ আমরা উপলব্ধি করতে পেরেছি। বিভিন্ন মানুষের ষড়যন্ত্রের কারণে ওসমান সরওয়ার আলম চৌধুরীর পরিবার আজ বিলুপ্তির পথে, ধ্বংসের পথে। আমাদের ভাই সোহেল সরওয়ার কাজল এর পক্ষে সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে তাকে জিতিয়ে আনতে। আমরা সবার সহযোগিতা এবং ভোট কামনা করি।

তিনি এসব কথা বলতে বলতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। এসময় রামু উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ সহ বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী ও সাধারণ ভোটাররা উপস্থিত ছিলেন।

পিডিএসও/রি.মা