এলাকাবাসীর দাবি

দুর্নীতিবিরোধী তৎপরতার কারণে মুক্তিযোদ্ধা সেলিমকে হত্যা

প্রকাশ : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৭:৩৬ | আপডেট : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৭:৪৮

অনলাইন ডেস্ক
ama ami

পাবনার ঈশ্বরদীর পাকশীতে মুক্তিযোদ্ধা মুস্তাফিজুর রহমান সেলিমকে দুর্নীতিবিরোধী তৎপরতার কারণেই হত্যার শিকার হতে হয়েছে বলে দাবি করছে তার এলাকার মানুষরা।

বৃহস্পতিবার রূপপুর মোড়ে সেলিম হত্যাকাণ্ডের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে এই দাবি করেন পাকশী ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার জাহাঙ্গীর আলম।

গতকাল বুধবার রাতে ঈশ্বরদীর রূপপুর বিবিসি বাজার থেকে ফেরার পর বাড়ির দরজায় সেলিমকে গুলি চালিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

মানববন্ধনে কমান্ডার জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমি আর সেলিম খুবই ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলাম।তার একটাই সমস্যা ছিল, সেটা হল অন্যায়ের সাথে সে কোনোদিন আপস করে নাই। অন্যায় ও দুর্নীতির প্রতিবাদ করাই কাল হল সেলিমের।

মানববন্ধনে সেলিমের মেয়ে সানজানা রহমান তোপা কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার বাবা বর্তমান রাজনীতির সাথে একমত না হওয়ায় নিজেকে অনেকটা গুটিয়ে নিয়েছিলেন। তারপরও কেন সন্ত্রাসীরা আমার বাবাকে গুলি করে হত্যা করল? আমি এই হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

মুক্তিযোদ্ধা সেলিম আগে পাকশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। কিছু দিন ধরে তিনি দলীয় রাজনীতিতে নিষ্ক্রিয় ছিলেন।

মানববন্ধনে এলাকাবাসীসহ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার ও মুক্তিযোদ্ধারা অংশ নেন। তারা অবিলম্বে খুনিদের চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান।

এলাকাবাসী জানায়, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র প্রকল্পের ভূমি অধিগ্রহণে স্থানীয় একটি চক্রের অনিয়ম ও দুর্নীতি নিয়ে সোচ্চার ছিলেন সেলিম। 

ঈশ্বরদী থানার ওসি বাহাউদ্দিন ফারুকী বলেন, “পুলিশ খুনি শনাক্ত করে গ্রেপ্তারের জন্য তৎপর রয়েছে। এ ঘটনায় এখনও কোনো মামলা হয়নি।

পিডিএসও/তাজ