জালিয়াতি করে বদলে ফেলেছেন বয়সও!

প্রকাশ : ১২ জানুয়ারি ২০১৯, ১৬:২৩

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

ঘুষ, অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে সাতক্ষীরা জেলা রেজিস্ট্রার, সাব রেজিস্ট্রার ও সহযোগীদের শাস্তির দাবি জানিয়েছে সাতক্ষীরা ভূমিহীন ঐক্য পরিষদ। শনিবার সকাল ১০টার দিকে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে এ দাবি জানানো হয়।

সাতক্ষীরা ভূমিহীন ঐক্য পরিষদের সভাপতি কওছার আলীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদের পরিচালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সাতক্ষীরা নাগরিক আন্দোলন মঞ্চের আহ্বায়ক ও জজকোর্টের অতিরিক্ত পিপি অ্যাড. ফাহিমুল হক কিসল, ভূমিহীন ঐক্য পরিষদের সহ-সভাপতি মফিজুর রহমান, আরমান আলী, অর্থ সম্পাদক মনিরুজ্জামান, সভানেত্রী মারফা খাতুন, বাবলু হাসানসহ আরও অনেকে।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ঘুষ অনিয়ম দুর্নীতি ও জমির শ্রেণি পরিবর্তন করে সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবে দলিল রেজিস্ট্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে জেলা রেজিস্ট্রার মুন্সি রুহুল ইসলাম ও তার সহযোগীরা। ঘুষের টাকা আদায় করতে নকল নবিশ আবুল কাশেমসহ কয়েকজন ব্যক্তিকে নিয়োগ দিয়ে রাখা হয়েছে। প্রতিদিন কমপক্ষে দশ লাখ টাকা জনগণের কাছ থেকে আদায়ের মিশন বাস্তবায়ন করে এই চক্র। সাব রেজিস্ট্রারের নেতৃত্বে বর্তমানে রেজিস্ট্রি অফিস অনিয়ম দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে।

মানববন্ধনে বক্তারা আরও বলেন, জন্ম তারিখ জালিয়াতি করে চাকরিতে বহাল রয়েছেন সাতক্ষীরা জেলা রেজিস্ট্রার মুন্সি রুহুল ইসলাম। গত ১ বছর আগেই তার অবসরে যাওয়ার কথা ছিলো। চাকরির প্রথম জীবনে খেদমত বইয়ের অনুলিপি কপিতে তিনি তার জন্ম তারিখ উল্লেখ করেছিলেন ৩০ নভেম্বর ১৯৫৮ সাল। সে অনুযায়ী তার অবসরে যাওয়ার কথা গত ২০১৭ সালের ২৯ নভেম্বর। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধা কোটায় চাকরির মেয়াদ এক বছর বৃদ্ধি পাওয়ায় তার অবসরে যাওয়ার কথা ২৮ নভেম্বর ২০১৮ তারিখে। ২০১৮ সালে এসে সাতক্ষীরা জেলা রেজিস্ট্রার ২০১৩ সালের একটি খেদমত বইতে জন্ম তারিখ পরিবর্তন করে ১৯৫৮ সালের পরিবর্তে ১৯৫৯ সাল করেছেন। জালিয়াতির মাধ্যমে চাকরিতেও বহাল আছেন এই দুর্নীতিবাজ অফিসার। আমরা এই কর্মকর্তা ও তার সহযোগীদের শাস্তি চাই।

এসব অভিযোগের বিষয়ে জানতে জেলা রেজিস্ট্রার ও সাব রেজিস্ট্রারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তারা মোবাইল কল রিসিভ করেননি। 

পিডিএসও/অপূর্ব