রংপুরে আলুর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা, দাম নিয়ে শঙ্কা

প্রকাশ : ১১ জানুয়ারি ২০১৯, ১৬:২৮

আব্দুর রহমান রাসেল, রংপুর ব্যুরো

রংপুর অঞ্চলে চলতি মৌসুমে আলুর বাম্পার ফলনের আশা করছেন এই এলাকার চাষীরা। তারা মনে করছেন, অন্যান্য বারের তুলনায় এবার বেশি ফলন পাওয়া যাবে। তবে আলু উত্তোলনের সময় কাঙ্ক্ষিত দাম পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় পড়েছেন চাষিরা। এখন শেষ মূহুর্তে আলুর পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। 

গত বছর আলুর আবাদ করতে গিয়ে নানা সমস্যায় পড়েন চাষিরা। প্রথমে আলুর দাম থাকলেও ভরা মৌসুমে আলুর দাম কমে যাওয়ায় অনেককে লোকসান গুনতে হয়। তাই অনেকেই এবার আলুর চাষ করছেন না। তবে পূর্বের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে অনেকেই বেশী পরিমান জমিতে আলু লাগিয়েছেন। রংপুরের মাহীগঞ্জ, কাউনিয়া, পীরগাছা, চৌধুরানীসহ রংপুরের বিভিন্ন এলাকার মাঠজুড়ে দেখা গেছে আলুর আবাদ।

মাহীগঞ্জ এলাকার আলুচাষি সিরাজুল ইসলাম জানান, বৈরি আবহাওয়া ও বাজারদর কম হওয়ায় গত বছর আলুতে অনেক লোকসান গুনতে হয়েছে আমাদের। এ বছর বেড়েছে সার, বীজ ও কীটনাশকের দাম। সব মিলে প্রতি বিঘা জমিতে প্রায় ৩০ হাজার টাকা ব্যয় করতে হচ্ছে। এ বছর এখনো আবহাওয়া অনুকূলে আছে জানিয়ে তিনি বলেন, এবারের আলু ফলনে আমরা বেশ আশাবাদী, তবে দাম ঠিক থাকলে লাভবান হওয়া যাবে।

একই এলাকার এমদাদুল হক বলেন, ‘হামরা এবার আলু আবাদ করোছি বেশি ফলন হওয়ার  আশায়। কিন্তু ঠিক ঠাক মতো আলুর দাম হামরা গুলা পামো তো।’

পীরগাছা উপজেলার আদম সবুজ পাড়া গ্রামের আলুচাষি মোহাম্মদ আলী বলেন, গত বছর প্রায় ২০ বিঘা জমিতে আলুর চাষ করে অনেক লোকসান হয়েছে। তাই এ বছর শুধু ১০ বিঘা জমিতে আলু লাগিয়েছি। এই সময়ে আলুতে অনেক রোগবালাই দেখা দিলেও এবছর এখনো পর্যন্ত তেমন কোনো রোগ দেখা যায়নি। তবে এবার আলু লাগানোর সময় আলু বীজের দাম বেশি হওয়ায় খরচটাও বেড়ে গেছে। 

রংপুর আঞ্চলিক কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো. মনিরুজ্জামান জানান, রংপুরে এবছর আলুতে বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভাবনা আছে। চলতি বছরে রংপুর জেলায় ৬ হাজার ৫শ’ ৬৫ হেক্টর জমিতে দেশি আলু এবং ৪৩ হাজার ৫শ’ ১৫ হেক্টর জমিতে উফশী  আলুর আবাদ হয়েছে যা আবাদের লক্ষ্যমাত্রাকে ছাড়িয়েছে। এবার ১০ লাখ ৭৬ হাজার ৪শ’ ৬০ মে. টন আলুর উৎপাদন হবে বলে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে।

তিনি বলেন, অন্যান্য বছর আলু ক্ষেতে বিভিন্ন রকমের ভাইরাস দেখা দিলেও এবছর এখনো তেমন কোনো সমস্যায় পড়তে হয়নি কৃষকদের। যে কারণে কৃষকেরা এবারে একটু বেশিই আশাবাদী। তবে দাম নিয়ে তিনিও বেশ শঙ্কিত। 

পিডিএসও/অপূর্ব