ঢাকা-পঞ্চগড় ট্রেন চলাচল আজ শুরু

পঞ্চগড়বাসীর দীর্ঘদিনের স্বপ্নপূরণ

প্রকাশ : ১০ নভেম্বর ২০১৮, ০৯:২৭

অনলাইন ডেস্ক

ঝক-ঝক-ঝক ট্রেন চলেছে, রাত দুপুরে অই। ট্রেন চলেছে, ট্রেন চলেছে ট্রেনের বাড়ি কই? কবি শামসুর রাহমানের কবিতার মতো ট্রেনের বাড়ি খোঁজার অপেক্ষা প্রায় শেষ। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে স্বপ্ন পূরণের মাধ্যমে পঞ্চগড় জেলাবাসী ট্রেনের বাড়ি খুঁজে পাচ্ছেন।

দীর্ঘদিনের স্বপ্নের পর আজ শনিবার সকাল এবং রাতে দুই দফায় সরাসরি আন্তঃনগর দুটি ট্রেন পঞ্চগড়-ঢাকা রুটে চলাচল শুরু করবে। পঞ্চগড় থেকে শুরু করে ‘দ্রুতযান’ এবং ‘একতা’ এক্সপ্রেস নামে দুটি ট্রেন নিয়মিত ২৩টি স্টেশন অতিক্রম করে পৌঁছাবে ঢাকায়। এটি হচ্ছে দেশের সবচেয়ে দূরত্বে ট্রেন চলাচল। আর তাই পঞ্চগড়বাসী এখন আনন্দ-উল্লাসে মেতে উঠছেন।

পঞ্চগড়ের মানুষের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ছিল পঞ্চগড় থেকে সরাসরি ঢাকা আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল। এই দাবিতে পঞ্চগড়বাসীসহ স্থানীয় বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন, ছাত্র, যুব সমাজ দীর্ঘদিন ধরে মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচি পালন করে আসছিল।

‘পঞ্চগড়বাসী’ নামে একটি সামাজিক সংগঠনের সদস্য রনি মিয়াজী বলেন, ‘দীর্ঘদিন পর আমাদের প্রাণের দাবি পূরণ হতে যাচ্ছে। আমরা ট্রেনের দাবিতে ব্যানার নিয়ে তিন তিনবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমাবেশে গিয়েছিলাম। প্রধানমন্ত্রী হাসি মুখে বলেছিলেন ব্যানার নামিয়ে ফেলো পঞ্চগড়ে আন্তঃনগর ট্রেন যাবে। অবশেষে আমরা এই ট্রেন পাচ্ছি।’

পঞ্চগড় রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, ঢাকা থেকে রেলপথে পঞ্চগড়ের দূরত্ব ৬৩৯ কিলোমিটার। এতদিন দিনাজপুর থেকে ঢাকা পর্যন্ত ‘দ্রুতযান’ ও ‘একতা’ এক্সপ্রেস ট্রেন দুটি চলাচল করত। এখন থেকে প্রতিদিন পঞ্চগড় স্টেশন থেকে সকাল ৭টা ২০ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা করবে ‘দ্রুতযান’ এক্সপ্রেস।

পঞ্চগড় রেলওয়ে স্টেশনের মাস্টার মোশাররফ হোসেন জানান, ঢাকা থেকে পঞ্চগড় পর্যন্ত দ্রুতযান ও একতায় শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত (এসি) বাথের ভাড়া এক হাজার ৯৪২ টাকা, এসি চেয়ারের ভাড়া এক হাজার ৫৩ টাকা, নন এসি বাথের ভাড়া এক হাজার ১৪৫ টাকা এবং শোভন চেয়ারের ভাড়া ৫৫০ টাকা নেওয়া হবে।

আপাতত দুই ট্রেনে পঞ্চগড়ের জন্য ৩৫টি করে শোভন চেয়ার বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। আন্তঃনগর ট্রেন চলাচলের জন্য সব প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন করা হয়েছে। তবে পঞ্চগড় রেলস্টেশনে আরো ব্যাপক উন্নয়ন কাজ হবে।

পঞ্চগড় জেলা প্রশাসক (ডিসি) সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, দেশের মধ্যে সবচেয়ে দীর্ঘ রেলপথ হচ্ছে এটি। এটি বর্তমান সরকারের ব্যাপক উন্নয়নেরই একটি অংশ। ইতোমধ্যে সব প্রস্তুতি শেষ করেছে রেল বিভাগ। আজ সকালে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আনন্দ র‌্যালিসহ পঞ্চগড় রেলস্টেশনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

পিডিএসও/তাজ