ধুনটে যমুনার পানি বৃদ্ধি

প্রকাশ : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:৪৬

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় উজান থেকে নেমে আসা পানিতে যমুনা নদী ফুঁসে উঠেছে। রোববার সন্ধ্যা ৬টায় যমুনা নদীর পানি বিপদসীমার ১৩ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। এদিকে পানি বৃদ্ধির ফলে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের অভ্যন্তরের ৭টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এসব গ্রামের ক্ষেতের ফসল তলিয়ে গেছে।

ভান্ডারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতিকুল করিম আপেল বলেন, যমুনা নদীর অভ্যন্তরের গ্রামগুলোতে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। এতে ভান্ডারবাড়ী ইউনিয়নের বৈশাখী ও রাধানগর চরের প্রায় ১ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এদিকে অব্যাহত পানি বৃদ্ধির ফলে নদীর তীরের সহড়াবাড়ী, শিমুলবাড়ী, কৈয়াগাড়ী, বানিয়াজান ও ভান্ডারবাড়ীর গ্রামের (আংশিক) বসত বাড়ীর চারপাশে পানি প্রবেশ করেছে। ঘর-বাড়ীতে পানি প্রবেশ করলে ওই এলাকার মানুষ বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে আশ্রয় নেবেন। বন্যায় শিমুলবাড়ী ও সহড়াবাড়ী পুরানো বাঁধ ভাঙ্গার আশংকরা রয়েছে। 

উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আব্দুস ছোবহান বলেন, যমুনা নদীর বৈশাখী ও রাধানগর চরসহ কয়েকটি গ্রামের নিম্নাঞ্চলের আবাদী জমিতে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। অনেক জায়গায় পানিতে তলিয়ে গেছে ক্ষেতের ধান, মরিচ, মাসকালাইসহ বিভিন্ন মৌসুমী ফসল। 

এদিকে রোববার দুপুরে বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাবিবর রহমান। এসময় তিনি বন্যা দুর্গত এলাকার মানুষকে ধর্য্যের সাথে দুর্যোগ মোকাবেলা করার আহ্বান জানান। 

তিনি বলেন, দুর্যোগে আক্রান্ত এলাকার মানুষের জন্য সরকার সচেষ্ট রয়েছে। এসময় ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল হাই খোকন, ধুনট থানার ওসি খাঁন মোহাম্মদ এরফান, আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম সোবহান, কুদরত-ই খুদা জুয়েল, শফিকুল ইসলাম, মহসিন আলম, শরিফুল ইসলাম খাঁনসহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। 

পিডিএসও/এআই