আসামি নিহত গণপিটুনিতে, ৭ হাজার লোকের বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশ : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৯:৫৭ | আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:১৩

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি
গণপিটুনিতে নিহত হত্যা মামলার প্রধান আসামি আব্দুল জলিল

সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার কৃষ্ণনগর বাজারে পুলিশের কাছ থেকে চেয়ারম্যান হত্যা মামলার প্রধান আসামি ইউপি সদস্য আব্দুল জলিলকে ছিনিয়ে নিয়ে গণপিটুনিতে নিহতের ঘটনায় কালিগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে। 

রোববার সকালে কালিগঞ্জ থানার এসআই রাজীব হোসেন বাদী হয়ে অজ্ঞাত সাত হাজার মানুষকে আসামি করে মামলাটি দায়ের করেন। তবে মামলায় কেউ আটক হয়নি।

শনিবার রাত ৯টার দিকে উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কেএম মোশাররফ হোসেন হত্যা মামলার প্রধান আসামি ইউপি সদস্য আব্দুল জলিলকে নিয়ে পুলিশ অস্ত্র উদ্ধারে গেলে বিক্ষুব্ধ হাজারো মানুষ তাকে গণপিটুনি দেয়। ঘটনাস্থলেই মারা যায় ইউপি সদস্য আব্দুল জলিল। তিনি কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের শঙ্করপুর গ্রামের হাবিবুল্লাহ গাইনের ছেলে।

কালিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসান হাফিজুর রহমান বলেন, হত্যা মামলার প্রধান আসামি আব্দুল জলিলকে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধারে গেলে হাজার হাজার জনতা পুলিশের গাড়ি ঘিরে ধরে। এরপর তাকে ছিনিয়ে নিয়ে কৃষ্ণনগর বাজারে গণপিটুনি দিলে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। এ ঘটনায় সাত হাজার অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামী করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে এ ঘটনায় কেউ এখনো আটক হয়নি। 

প্রসঙ্গত, গত ৮ সেপ্টেম্বর রাত পৌনে ১১টার দিকে কালিগঞ্জ উপজেলার কৃষ্ণনগর বাজারে যুবলীগ অফিসে জাপা নেতা ইউপি চেয়ারম্যান কেএম মোশাররফ হোসেনকে গুলি করে ও কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় পরদিন নিহত চেয়ারম্যানের মেয়ে বাদী হয়ে কালিগঞ্জ থানায় ১৯ জনের নামোল্লেখ করে ও অজ্ঞাত আরও ২০ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ এ পর্যন্ত ৫ জনকে আটক করেছে। যার মধ্যে তিনজন আদালতে হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে জবানবন্দী দিয়েছেন। জবানবন্দিতে তারা গণপিটুনিতে নিহত ইউপি সদস্য আব্দুল জলিলকে হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী হিসেবে উল্লেখ করেন। 

পিডিএসও/এআই