জনপ্রশাসন পদক পাচ্ছেন বালিয়াডাঙ্গী'র ইউএনও

প্রকাশ : ২৩ জুলাই ২০১৮, ১৪:২৭

আল মামুন জীবন, বালিয়াডাঙ্গী(ঠাকুরগাঁও)

জনপ্রশাসন পদক পাচ্ছেন ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ২ কর্মকর্তা ও ১ জন ব্যানবেইজের সহকারি প্রোগ্রামার। তারা হলেন- বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুল মান্নান, শিক্ষা অফিসার মো. আব্দুর রহমান, সহকারি প্রোগ্রামার মো. লিয়াজ মাহমুদ লিমন।

সোমবার ‘জাতীয় পাবলিক সার্ভিস দিবস’ উপলক্ষে ঢাকাস্থ ওসমানি স্মৃতি মিলনাতয়নে আয়োজিত এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে এ পদক গ্রহণ করবেন তিনি। গত ১৮ জুলাই জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব ফয়েজ আহম্মদ স্বাক্ষরিত এক পত্রে (ডিও পত্র নং- ০৫.০০.০০০০.১৯৬.২৩.০১৭০১৭-৩০৮) বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

পত্রে উল্লেখ করা হয়, আব্দুল মান্নান বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ও প্রশংসনীয় অবদানের স্বীকৃতিস্বরুপ জেলা ক্যাটাগরিতে জনপ্রশাসন পদক-২০১৮ হিসেবে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে চূড়ান্তভাবে মনোনিত করা হয়।

জানা গেছে, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় এসএসসি পাস করার আগে ৫৫ ভাগ ছাত্রী ঝরে পড়ত। কারণ বাল্যবিবাহ ও দারিদ্র্য। বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থীর ঝরে পড়া বিষয়টি নজরে আসে বালিয়াডাঙ্গী নির্বাহী কর্মকর্তার। ২০১৫ সালের জুনে তিনি উদ্যোগ গ্রহণ করেন বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে সামাজিক কর্মসূচি। পরে তিনি বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ ও স্কুলে ঝরে পড়া রোধকল্পে একটি উদ্ভাবনী ধারণা পাঠান প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দেওয়া ধারণা গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী দফতরের এটুআই প্রকল্প পরিচালক। শুরু হয় বাল্যবিবাহ, ইভটিজিং, যৌতুক, নারী নির্যাতন ও মাদক প্রতিরোধে শিক্ষার্থীদের বিশেষ প্রশিক্ষণ। এ ছাড়াও কাজী ও নিকাহ রেজিস্ট্রার, ইমাম, পুরোহিত, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক-অভিভাবক ও গ্রাম পুলিশকেও এ কার্যক্রমের আওতায় নিয়ে এসে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়।। পাড়া-মহল্লায় গড়ে উঠে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ কমিটি। লেখাপড়া চালিয়ে যেতে দরিদ্র শিক্ষার্থীদের আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়।

শুধু তাই নয় ‘উপজেলার ৬২টি স্কুল-মাদরাসার ১৭ হাজার শিক্ষার্থীকে স্টুডেন্ট ডাটাবেজের আওতায় নিয়ে এসে বাল্যবিবাহ ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ড্রপআউট প্রতিরোধে। শিক্ষক, কাজী ও নিকাহ রেজিস্ট্রার, ইমাম, পুরোহিতদের এ ডাটাবেজের আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে এক প্রতিক্রিয়ায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান বলেন, এই অর্জন আমাদের সকলের। এই পুরস্কারের অংশীদার বালিয়াডাঙ্গী তথা পুরো ঠাকুরগাঁওবাসীর। আমি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই প্রাক্তন জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল আউয়াল, বর্তমান জেলা প্রশাসক আখতারুজ্জামান এবং উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, ইউপি চেয়ারম্যান, রাজনৈতিক ব্যক্তি, সাংবাদিক এবং এই প্রকল্পে শারিরীক ও মানসিকভাবে শ্রমদানকারী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের সকল কর্মচারীকে।

পিডিএসও/রিহাব