চিরিংগা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির বেপরোয়া চাঁদাবাজি

প্রকাশ : ১৩ মে ২০১৮, ১৯:৫০

মোঃ নাজমুল সাঈদ সোহেল, চকরিয়া

কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চকরিয়ার চিরিংগা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ি এখন চাঁদাবাজির ঘাটে পরিণত হয়েছে। কাগজপত্র যাছাই, অবৈধ পার্কিং ও চলাচলসহ নানা কারণে টাকা আদায় করছে ফাঁড়ি পুলিশ। এতে গাড়ির মালিক-চালক, মোটরযান ব্যবসায়ী সবার ত্রাহি অবস্থা।

সূত্র মতে, মহা-সড়কে অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ও নিরাপত্তা নিশ্চিতে চকরিয়া-চিরিংগা ষ্টেশন-বানিয়ারছরা ঢালা-চকরিয়া কলেজ গেইট-বরইতলী রাস্তার মাথা- আজিজনগরস্থ জাইল্লারঢালাসহ বিশাল এলাকা দেখভাল করছেন চিরিংগা হাইওয়ে পুলিশ। অবৈধ যানবাহন নিয়ন্ত্রণে ফাঁড়ির ইন্সপেক্টর, সার্জেন্ট ও কনষ্টেবল মহা-সড়কের বানিয়ারছরা ঢালায় দিনের পৃথক সময়ে চেকপোস্ট বসান। সেখানেই দূরপাল্লার বাস ছাড়া আন্তঃসড়কে চলাচল করা মাইক্রোবাস, কার, জিপ, ডাম্পার, ট্রাক, মিনিট্রাক, সিএনজি, মোটরসাইকেল, টমটমসহ সব ধরনের যানবাহন আটকে নানা অজুহাতে টাকা আদায় করা হয়। কাগজপত্র ঠিক থাকলেও তাদের নির্ধারিত টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালেই জরিমানা কিংবা মামলার খড়গ নামছে মালিক-চালক সবার কপালে। বিশেষ করে মাসের মাঝামাঝি ও শেষ সময়ে এ মাত্রা তীব্র হলেও দৈনন্দিন ঘটে বলে ঘোর অভিযোগ। এমনকি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য এম্বুলেন্সযোগে রোগীবাহী গাড়িও রেহাই পায় না চাঁদাবাজির হাত থেকে। এধরনের ঘটনা অহরহ ঘটছে। কিছু প্রকাশ পাচ্ছে কিছু নীরবেই রয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন সুতোয় যানবাহন আটকে হাজার হাজার টাকা আদায় করে হাইওয়ে পুলিশ। শুধু তারা নয়, ভ্রাম্যমাণ আদালতের নামে মাসের শেষে অসংখ্য যনবাহনকে বিভিন্নভাবে জরিমানা করে লাখ লাখ টাকা আদায় করার অভিযোগও রয়েছে।

চকরিয়া উপজেলার চিরিংগা ষ্টেশন থেকে চকরিয়া-পেকুয়া -মগনামা আভ্যন্তরীণ সড়কগুলোতে চলাচলকারী সিএনজি চালকরা জানিয়েছেন, উপ-পরিদর্শক সেলিম আলম ভ্যান নিয়ে মহাসড়ক ও আভ্যন্তরিণ সড়ক থেকে সিএনজি ও টমটম গাড়ি আটক করে ফাঁড়িতে নিয়ে যায়। পরে চালকদেরকে সন্ধ্যার দিকে দেখা করতে বলে। চালকরা ফাঁড়িতে গেলে প্রতিটি গাড়ি ৫-৭ হাজার টাকা আদায় করে ছেড়ে দেয়া হয়। যারা যোগাযোগ করেনা তাদের গাড়ির বিরুদ্ধে মামলা জুড়ে দেয়া হয়। এভাবে আটক বাণিজ্যের নামে প্রতি মাসে হাতিয়ে নিচ্ছেন লাখ লাখ টাকা।

গত বুধবার বিকালে রাস্তার দুপাশে চারটি গাড়ি ও একটি মোটরসাইকেল থামিয়ে চাঁদা আদায়ের সময় এ প্রতিবেদক ছবি তুলতে গেলে কর্তব্যরত অফিসার মিজানসহ কয়েকজন কনষ্টেবল এসে প্রশ্ন করে- ছবি উঠালেন কেন? এ সময় সাংবাদিক পরিচয় দেবার পর অকথ্য ভাষায় গালি দিয়ে বিভিন্নভাবে নাজেহাল করা হয়। পরে একজন কনস্টেবল এগিয়ে এসে তাৎক্ষণিকভাবে এই প্রতিবেদককে অপদস্থ হওয়া থেকে বাঁচিয়ে দেন।

অভিযোগ রয়েছে, চিরিংগা হাইওয়ে পুলিশ সড়কে চলাচলরত সিএনজি, টমটম গাড়ি থেকে টোকেনের মাধ্যমে মাসিক ভিত্তিতে মাসোহারা আদায় করা হয়। প্রতিমাসে একটি গাড়িকে ৫শত টাকা হারে টোকেন মানি দিতে হচ্ছে বলে জানান ভুক্তভোগী চালকরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চিরিংগা হাইওয়ে পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, ফাঁড়িতে সব ধরণের কার্যক্রম চলে আইসির নির্দেশে। তাছাড়া আইসির নিজস্ব তিনজন পাবলিক (সোর্স) থাকে ব্যারাকে। 

এদের মাধ্যমে বিভিন্ন অপরাধীদের কাছ থেকে নিয়মিত চাঁদা আদায় করা হয় বলেও জানান সেই কর্মকর্তা। 

যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের ঘোষণা মতে, ত্রিহুইলার সিএনজি, টমটম মহাসড়কে চালানো নিষেধ। কিন্তু কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বিভিন্ন এলাকায় আসতে গেলে অবশ্যই মহাসড়ক মাড়াতে হয়। এ সুযোগকে কাজে লাগাচ্ছে মালুমঘাট হাইওয়ে পুলিশ।

পটিয়ার পর চকরিয়া নলবিলা ফরেষ্ট বিটকাম চেক ষ্টেশনের পাশে ছাড়া মাঝখানের বিশাল এলাকায় কোথাও সিএনজি স্টেশন নেই। রাত ১২টা থেকে সকাল ৮ টা পর্যন্ত গ্যাস নিতে সিএনজিগুলো মাহাসড়কে আসতে পারবে এমন নির্দেশনা থাকলেও সে সময়েও গ্যাস নিয়ে ফেরা গাড়িগুলোও হয়রানি থেকে বাদ যাচ্ছে না। নির্দিষ্ট গ্যারেজে চার্জিং করে উপ-সড়কগুলোতে যেতে গিয়ে হাইওয়ে পুলিশের ব্যারিকেডে পড়ছে টমটম। এসব টমটম আটকে টাকা আদায় এখন নিয়মে পরিণত হয়েছে এখানে।

ভূক্তভোগীদের অভিযোগ, কিছু কনস্টেবল, সার্জেন্ট গাড়িপ্রতি ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা করে বখরা আদায় করে আসছেন। অনেক সময় গ্যারেজ থেকেও টমটম নিয়ে এসে ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে ।

অপর একটি সূত্র জানায়, মামলা কিংবা জরিমানায় ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা আদায় করা হলেও বিপরীতে স্লিপ দিয়ে সরকারি রাজস্ব আদায় দেখানো হয় ২’শ থেকে ৫’শ টাকা। এরপরও যানবাহন সংশ্লিষ্টদের কোনো উচ্চবাচ্য করার সুযোগ থাকে না।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে চিরিংগা হাইওয়ে ফাড়ির ইনর্চাজ(ইন্সপেক্টর) মোঃ আলম বলেন, যত মামলা কিংবা জরিমানা আদায় হয়েছে তার বিপরীতে স্লিপ দেয়া আছে। অতিরিক্ত টাকা আদায়ের বিষয়টি সঠিক নয় দাবি করে হাইওয়ে পুলিশের সঙ্গে কথা বলতে অনুরোধ করেন তিনি।

পিডিএসও/রিহাব