গাইবান্ধা-১ উপ-নির্বাচনে শান্তিপুর্ণ ভোট গ্রহণ সম্পন্ন

প্রকাশ : ১৩ মার্চ ২০১৮, ১৯:১৫

মুকুল মাসুদ, গাইবান্ধা

গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের উপ-নির্বাচনে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহন সম্পন্ন হয়েছে। সকাল ৮টায় ভোট গ্রহণ শুরু হলেও দুপুর ১২টা পর্যন্ত অধিকাংশ কেন্দ্রেই ভোটারদের উপস্থিতি ছিলো খুবই কম। তবে বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটারদের উপস্থিতি কিছুটা বাড়লেও সার্বিকভাবে ভোটারদের উপস্থিতি ও নির্বাচনকে ঘিরে উৎসাহ উদ্দীপনা ছিল কম। তবে সকল কেন্দ্রেই শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হয়। প্রতিটি ভোট কেন্দ্রেই পর্যাপ্ত আইন শৃংখলা বাহিনী মোতায়েন থাকলেও পাশাপাশি র‌্যাবের ব্যাপক টহলদারি অব্যাহত ছিল। তবে দহবন্দ ইউনিয়নের গোপাল চরণ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলার চেষ্টাকালে চারজনকে আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলো- রেজাউল আলম, আশেক আলী জিকু, জুয়েল রানা ও দুদু মিয়া। আটককৃতদের ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করে ভোটকেন্দ্রে প্রভার বিস্তারের অপরাধে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মামুন তাদের প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করেন। 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে মাঠেরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ২ হাজার ৫২৮ জন ভোটারের মধ্যে ভোট দিয়েছে মাত্র ১০৫ জন। ১০টা ১৫ মিনিটে ধর্মপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ২ হাজার ৫৪১ জন ভোটারের মধ্যে ভোট দিয়েছে ১৫৮ জন। তেমনি ১১টা ১০মিনিটে বাজারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় ২ হাজার ৭১৮ জন ভোটারের মধ্যে মাত্র ৪শ’ ১০জন ভোট দিয়েছেন বলে জানা গেছে। ১১টা ৫৫ মিনিটে বামনডাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৫ হাজার ১২৪ জন ভোটারের মধ্যে ভোট দিয়েছে মাত্র ১ হাজার ২শ’ ১০জন।

এছাড়া বেলা ১২টা ১০ মিনিটে গোপাল চরণ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ১ হাজার ৫০০ ভোটারের মধ্যে ভোট দিয়েছে মাত্র ৩১৫ জন। ১২টা ৫৫ মিনিটে উত্তর শাহবাগ ভোট কেন্দ্রে ৪ হাজার ৩৭৯ জন ভোটারের মধ্যে শতকরা মাত্র ৩০ ভাগ ভোটার ভোট দিয়েছেন বলে জানা গেছে। 

এই উপ-নির্বাচনে ১০৯টি ভোট কেন্দ্রে উপজেলার ১টি পৌরসভা ও ১৫টি ইউনিয়নের ৩ লাখ ৩৮ হাজার ৫৫৬ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এতে দায়িত্বে রয়েছেন প্রিজাইডিং অফিসার ১০৯ জন, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ৬৪৭জন ও পোলিং অফিসার ১ হাজার ২৯৪ জন। আইনশৃঙ্খলার দায়িত্বে রয়েছেন পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাব, আনসারসহ অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রায় ৪ হাজার কর্মকর্তা ও সদস্য। 

উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আফরুজা বারী (নৌকা), জাতীয় পার্টি (জাপা) সমর্থিত প্রার্থী ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী (লাঙ্গল), ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) জিয়া জামান খান (আম) ও গণফ্রন্টের শরিফুল ইসলাম (মাছ) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। 

উল্লখ্য, ২০১৭ সালের ১৯ ডিসেম্বর সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা আহমেদ সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেলে এ  আসনটি শূন্য হয়। গত ৪ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন কমিশন উপ-নির্বাচনের তফশীল ঘোষণা করেন।  

পিডিএসও/রিহাব