আদার দাম চড়া, ডিম-মাছ স্বাভাবিক

প্রকাশ : ১১ এপ্রিল ২০২০, ১২:৩৪

নিজস্ব প্রতিবেদক

সপ্তাহের ব্যবধানে দাম বেড়েছে সব ধরনের আদার। মসলাজাতীয় এ পণ্যটি কেজিতে ১০০ টাকা পর্যন্ত বাড়তি দামে বিক্রি হতে দেখা গেছে। আদার দাম বাড়লেও অপরিবর্তিত রয়েছে রসুন, পেঁয়াজ ও শাকসবজি এবং মুরগির দাম। তবে কমেছে ডিম ও মাছের দাম। বাজারে প্রকারভেদে প্রতি ডজন ডিমের দাম পাঁচ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত কমেছে। আর কেজিতে ১০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত কমেছে মাছের দাম। আগের চড়া দামেই বিক্রি হচ্ছে চাল, ডাল ও খোলা সয়াবিন।

এদিকে পণ্যের দাম নিয়ে ক্রেতা-বিক্রেতার মধ্যে রয়েছে ভিন্নমত। ক্রেতা-বিক্রেতার উপস্থিতি বিবেচনায় দাম সন্তোষজনক নয়Ñ এমন দাবি ক্রেতাদের। আর ক্রেতার উপস্থিতি কমায় দাম কমছেÑ দাবি বিক্রেতার। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এসব চিত্র উঠে এসেছে।

রাজধানীর সেগুনবাগিচা, শান্তিনগর, মালিবাগ, রামপুরা, খিলগাঁও বাজারে শাকসবজির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। প্রকারভেদে প্রতি কেজি আলু বিক্রি হচ্ছে ২৫ থেকে ৩৫ টাকা, সিম ৩০ থেকে ৪০, কাঁচামরিচ ৬০ থেকে ৮০, টমেটো ৩০ থেকে ৪০, করলা ৪০ থেকে ৫০, উচ্ছে ৫০ থেকে ৬০, বেগুন (প্রকারভেদে) ৪০ থেকে ৮০, গাজর ৩০ থেকে ৪০, পেঁপে ২৫ থেকে ৩০, কচুর লতি ৫০ থেকে ৬০, বড় কচু ৫০ থেকে ৬০, শসা ৩০ থেকে ৫০ এবং সিমের বিচি ১০০ থেকে ১২০ টাকা। এসব বাজারে প্রতি পিস লাউ বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৬০ টাকা, প্রতি পিস বাঁধাকপি-ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৫০, বাঁধাকপি (গ্রিন) ৫০ থেকে ৮০ টাকা। আর প্রতি আঁটি কচুশাক ৮ থেকে ১০ টাকা, লালশাক ১০, মুলা ১৫, পালংশাক ১০ থেকে ১২, লাউ ও কুমড়া শাক ৩০ থেকে ৪০ টাকা বিক্রি করতে দেখা গেছে। চড়া দাম রয়েছে কাঁচা কলা ও লেবুর। বাজারে প্রতি হালি কাঁচা কলা বিক্রি হচ্ছে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, লেবু বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৭০ টাকায়।

আগের বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে গরু ও খাসির মাংসের দাম। গরুর মাংস প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০০ টাকা, মহিষের মাংস ৬০০, খাসির মাংস ৮০০ ও বকরি ৭৫০ টাকা। অপরিবর্তিত রয়েছে মুরগির বাজার। বর্তমানে প্রতি কেজি বয়লার ১২০ টাকা, বাজারভেদে লেয়ার ১৮০ থেকে ২০০, সাদা লেয়ার ১৭০ থেকে ১৮০ এবং সোনালি মুরগি ২৫০ থেকে ২৬০ টাকা।

এসব বাজারে প্রতি ডজন লাল ডিম বিক্রি হচ্ছে ৯০ থেকে ৯৫ টাকা। ১০ টাকা কমে দেশি মুরগির ডিম প্রতি ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকা, ২০ টাকা কমে সোনালি মুরগির ডিম প্রতি ডজন বিক্রি হচ্ছে ১১০, হাঁসের ডিম প্রতি ডজন ১২০ টাকা। কেজিতে ১০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত কমেছে বিভিন্ন ধরনের মাছের দাম। এসব বাজারে দাম কমে বর্তমানে প্রতি এক কেজি ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার থেকে ১ হাজার ৫০ টাকা, ৭৫০ গ্রাম ওজনের ইলিশ ৬৫০ থেকে ৭০০, ছোট ইলিশ আকারভেদে ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা কেজি দরে।

এ ছাড়া প্রতি কেজি কাঁচকি ৩০০ টাকা কেজি, মলা ৩০০, ছোট পুঁটি (তাজা) ৫০০, শিং (আকারভেদে) ৩০০ থেকে ৫৫০, পাবদা ৪০০ থেকে ৫৫০, চিংড়ি (গলদা) ৪০০ থেকে ৮০০, বাগদা ৪৫০ থেকে ১০০০, হরিণা ৪০০ থেকে ৫০০, দেশি চিংড়ি ৩৫০ থেকে ৫০০, রুই (আকারভেদে) ২২০ থেকে ৩৫০, মৃগেল ২০০ থেকে ৩০০, পাঙাস ১৩০ থেকে ১৮০, তেলাপিয়া ১৪০ থেকে ১৮০, কৈ ১৮০ থেকে ২০০, কাতল ২০০ থেকে ৩০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে।

বাজারে আদার দাম বাড়লেও অপরিবর্তিত রয়েছে পেঁয়াজ ও রসুনের দাম। সপ্তাহের ব্যবধানে এসব বাজারে কেজিতে ১০০ থেকে ১২০ টাকা বাড়তি রয়েছে আদার দাম। বর্তমানে মিয়ানমার, চায়না ও দেশি প্রতি কেজি আদা বিক্রি হচ্ছে ২৬০ টাকা, যা এক সপ্তাহ আগে বিক্রি হয়েছে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা। এসব বাজারে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে (মানভেদে) ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। প্রতি কেজি রসুন দেশি (মানভেদে) ৭০ থেকে ১০০, চায়না ও মিয়ানমারে রসুন ১৩০ থেকে ১৫০, তিন কোয়া রসুন ১৮০ টাকা।

আগের বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে খোলা সয়াবিন। খোলা সয়াবিন (লাল) বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১০৫ টাকা প্রতি লিটার, খোলা সাদা সয়াবিন প্রতি লিটার বিক্রি হচ্ছে ৯৫ থেকে ১০০ টাকা। অপরিবর্তিত রয়েছে সরিষার তেল। খোলা সরিষার প্রতি লিটার তেল বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকা।

আগের চড়া দাম রয়েছে চালের বাজারে। এসব বাজারে প্রতি কেজি মিনিকেট (নতুন) চাল বিক্রি হচ্ছে ৫৬ থেকে ৫৮ টাকা, মিনিকেট পুরান ৬২, বাসমতি ৬৫ থেকে ৬৬, প্রতি কেজি আটাশ চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৬, এক সিদ্ধ চাল বিক্রি হচ্ছে ৪২, পাইজাম ৪২, পোলাও চাল ৯৫ থেকে ১০০ টাকা। বাজারে প্রতি কেজি ডাবলি ডাল বিক্রি হচ্ছে ৪৬ টাকা, অ্যাঙ্কার ৪৬, দেশি মসুর ডাল বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা, মসুর (মোটা) ৮০ টাকা। প্রতি কেজি এলাচ বিক্রি হচ্ছে ৪ হাজার ৬০০ থেকে ৫ হাজার ৫০০ টাকা। জয়ত্রী প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার ৫০০ থেকে ৩ হাজার ৬০০ টাকা। জায়ফল প্রতি কেজি ৮০০ টাকা।

পিডিএসও/তাজ