বাজারে অভিযান অব্যাহত

স্বাভাবিক হচ্ছে নিত্যপণ্যের দাম

প্রকাশ : ২৩ মার্চ ২০২০, ০৮:২২ | আপডেট : ২৩ মার্চ ২০২০, ০৮:৩৯

নিজস্ব প্রতিবেদক

নভেল করোনাভাইরাস আতঙ্কে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় অভিযান অব্যাহত রেখেছেন ভ্রাম্যমান আদালত। গতকাল ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা-উপজেলাগুলোতে অভিযান পরিচালনা করেছে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা। অভিযানের ফলে স্বাভাবিক হচ্ছে নিত্যপণ্যের বাজার। দাম কমতে শুরু করেছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের।

রাজধানীর রামপুরা বাজার ঘুরে ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পেঁয়াজসহ নিত্যপণ্যের সরবরাহে কোনো ঘাটতি নেই। বাজারে দেশে উৎপাদিত নতুন পেঁয়াজ আসছে। উৎপাদিত পেঁয়াজের বড় অংশ এখন ব্যবসায়ীদের গুদামে। সরবরাহ ঠিক রাখার জন্য তা যথেষ্ট। এরপরও ব্যবসায়ীরা তিন দিনের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দ্বিগুণ করেছেন। ৩৫ টাকা কেজির পেঁয়াজ বাজারে বিক্রি শুরু হয়েছে ৬০ থেকে ৮০ টাকায়। শুধু পেঁয়াজ নয়, দাম বেড়েছে রসুনেরও। প্রতি কেজি রসুন ৭০ টাকা থেকে বেড়ে ৮০ টাকা হয়েছে। অভিযানের ফলে পেঁয়াজ ৪০-৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। এ ছাড়া দেশি রসুন ৮০ টাকা ও বিদেশি ১৪০, আদা ১৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। এ বাজারে প্রতি কেজি বাসমতি চাল ৫৮, পোলাউ ৮১, মিনিকেট ৪৯, নাজিরশাইল ৪৯, আটাশ ৩৭, উনত্রিশ ৩৮, জিরা শাইল ৩৯, পাইজাম ৩৬, কাটারিভোগস ৮৪ ও নাজির কাটারি ৫৩ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে।

এ পরিস্থিতিতে গতকাল পুরান ঢাকার শ্যামবাজারে অভিযানে নেমেছে র‌্যাব। ৩৫ টাকার পেঁয়াজ ৬৫ থেকে ৭০ টাকা বিক্রি করায় ৮ আড়তকে ২৪ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। গতকাল রোববার সকাল সাড়ে ৮টায় অভিযানে নামে র‌্যাব-১০। অভিযানে নেতৃত্ব দিচ্ছেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম। তিনি বলেন, করোনায় এমনিতেই আতঙ্কিত ক্রেতা সাধারণ। তার মধ্যে অসাধু ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজের দাম বাড়িয়েছেন। ক্রেতাদের স্বস্তি দিতে আজ শ্যামবাজারে পেঁয়াজের আড়তে অভিযানে নেমেছি। দেখি পেঁয়াজের ঝাঁজ কমে কি না?

এদিকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন উত্তরায় ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান পরিচালনা করে। আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা (অঞ্চল-১) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুলকার নায়নের নেতৃত্বে উত্তরার বিভিন্ন সেক্টরের বাজারে দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখার বিষয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। মূল্য তালিকার অধিক মূল্য চাওয়ার কারণে দুজন বিক্রেতাকে স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন ও ভোক্তা অধিকার আইন অনুযায়ী ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এ ছাড়া পণ্যের দাম বাড়ানো ঠেকাতে দেশের বিভিন্ন বাজারে অভিযান চালিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর—

ফরিদপুর : ফরিদপুরের বিভিন্ন বাজারে দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়ানোর পরিপ্রেক্ষিতে বাজার নিয়ন্ত্রণে জেলা প্রশাসন ও পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের সঙ্গে মাঠে নেমেছেন ফরিদপুর চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফসিসিআই) ব্যবসায়ী নেতারা। ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার বলেন, গত দুদিনে ফরিদপুর জেলায় ৬৫ জন ব্যবসায়ীকে ৪ লাখ ৭০ হাজার ২০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

মেহেরপুর : করোনাভাইরাসের প্রভাবে মেহেরপুর বাজারে হঠাৎ করেই নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় বাজার মনিটরিংয়ে মাঠে নেমেছে প্রশাসন। মেহেরপুর শহরের বড়বাজারে ও সদর উপজেলার আমঝুপি বাজারে নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে পণ্যের অতিরিক্তি মূল্য নেওয়ায় তিন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

গতকাল রোববার দুপুরে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক মো. মাইন উদ্দিন এ আদালত পরিচালনা করেন। এ সময় চাল ও পেঁয়াজের মূল্য বেশি রাখায় তিন প্রতিষ্ঠানকে ২৫ হাজার জরিমানা করা হয়েছে।

হাজীগঞ্জ (চাঁদপুর) : চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে বেশি দামে চাল বিক্রি এবং চালের দোকানে রাসায়নিক সার বিক্রয় করার অপরাধে চার চালের আড়তের মালিককে ৯৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বৈশাখী বড়ুয়া। গতকাল রোববার বিকালে হাজীগঞ্জ বাজারে এই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

গাইবান্ধা : গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলায় অতিরিক্ত দামে চাল বিক্রির দায়ে দুটি চালের আড়তকে ভোক্তা-অধিকার আইনে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর গাইবান্ধার সহকারী পরিচালক আবদুস সালাম তালুকদার। জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক (অতি. সচিব) বাবলু কুমার সাহার আদেশক্রমে এবং জেলা প্রশাসক মো. আবদুল মতিনের নির্দেশনায় রোববার ওই অভিযান পরিচালনা করেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর গাইবান্ধা জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আবদুস ছালাম তালুকদার।

পিডিএসও/হেলাল