মানিলন্ডারিং রোধে দুদক-বিএফআইইউ সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

প্রকাশ : ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ১৯:৪৩ | আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ২০:১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক

অর্থপাচার রোধ, পাচার করা অর্থ উদ্ধার ও সম্পৃক্ত ব্যক্তিদের আইনের আওতায় আনতে দুর্নীতি দমন কমিশন ও বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়েছে।

বুধবার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষে মানিলন্ডারিং অনুবিভাগের মহাপরিচালক আ ন ম আল ফিরোজ এবং বিএফআইইউয়ের পক্ষে মহাব্যবস্থাপক ও অপারেশন হেড মো. জাকির হোসেন চৌধুরী সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন।

সমঝোতা স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিএফআইউয়ের উপপ্রধান ও নির্বাহী পরিচালক মো. ইসকেন্দার মিয়া, যুগ্ম পরিচালক মো. নূরুন্নবী, যুগ্ম পরিচালক মো. মাসুদ রানা এবং দুদক মহাপরিচালক (প্রশাসন) মো. জহির রায়হান, মহাপরিচালক (বিশেষ তদন্ত) সাঈদ মাহবুব খান, মহাপরিচালক (লিগ্যাল) মো. মফিজুর রহমান ভূঁঞা এবং মহাপরিচালক (প্রশিক্ষণ ও আইসিটি) এ কে এম সোহেল প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে দুর্নীতি দমন কমিশনের সচিব মুহাম্মদ দিলোয়ার বখ্ত বলেন, দুদক পরিচালিত মানিলন্ডারিং মামলায় সাজার হার শতভাগ। যদিও মামলার সংখ্যা কিছুটা কম। আমরা আশা করি, বিএফআইইউ ও দুদকের মধ্যে পারস্পরিক সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের মাধ্যমে কমিশন যদি পর্যাপ্ত তথ্য পায়, তাহলে মানিলন্ডারিং মামলার সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।

তিনি আরো বলেন, দেশ থেকে অর্থপাচার রোধ, পাচার করা অর্থ উদ্ধার এবং এ জাতীয় অপরাধের সঙ্গে সম্পৃক্ত ব্যক্তিদের আইনের আওতায় আনার জন্য সমন্বিত প্রয়াসের বিকল্প নেই। সমঝোতা স্মারকের মাধ্যমে সমন্বিত প্রয়াসের শুভযাত্রা শুরু হলো বলে জানান তিনি।

এ সমঝোতা স্মারকের মাধ্যমে নির্ধারিত নিয়মে তথ্যবিনিময়, মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ ও দমন বিষয়ে বিশেষজ্ঞ মতামত প্রদান, মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ ও দমন বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে দক্ষতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করা এবং মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ ও দমনবিষয়ক ব্যবস্থার অবকাঠামোগত উন্নয়নে পারস্পরিক সহযোগিতা প্রদানের সুযোগ রয়েছে।

পিডিএসও/তাজ