কেজিতে ৩০ টাকা বাড়ল পেঁয়াজের দাম

প্রকাশ : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:২১

অনলাইন ডেস্ক

ভারত পেঁয়াজের রফতানি মূল্য নির্ধারণ করে দেয়ায় দেশের বাজারে প্রতিদিনই বাড়ছে পেঁয়াজের দাম। চার দিনের ব্যবধানে ঢাকাসহ সারা দেশে বাজারভেদে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম ২৫-৩০ টাকা বেড়েছে।

দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে আমদানিতে এলসি মার্জিন, সুদের হার হ্রাস, বন্দরে দ্রুত খালাস এবং নির্বিঘ্নে পরিবহন নিশ্চিত করতে সরকারের তরফ থেকে উদ্যোগ নেয়া হলেও তা কাজে আসছে না।

এদিকে সোমবার রাজধানীতে টিসিবির পক্ষ থেকে খোলাবাজারে পেঁয়াজ বিক্রির কথা থাকলেও প্রস্তুতি না থাকায় তা হয়নি। টিসিবি জানিয়েছে, মঙ্গলবার থেকে রাজধানীর ৫টি স্পটে পেঁয়াজ বিক্রি করা হবে। তবে আজও বিক্রি সম্ভব হবে কিনা তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন পেঁয়াজ আমদানিকারকরা।

রাজধানীর কারওয়ান বাজার, নয়াবাজার ও রামপুরা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সোমবার দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয় ৭৮-৮০ টাকা কেজি দরে, যা শনিবার ছিল ৭০ টাকা। আর বৃহস্পতিবার বিক্রি হয় ৫০-৫৫ টাকায়। সোমবার ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হয় ৭০ টাকা কেজি দরে।

এ পেঁয়াজ শনিবার বিক্রি হয় ৬০ টাকায়। বৃহস্পতিবার ছিল ৪৫-৫০ টাকা। অন্যদিকে চট্টগ্রামে সোমবার পাইকারি বাজারে দেশি পেঁয়াজ বড় ৭৫ ও ছোট ৬৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়, যা ১০ দিন আগে ছিল ৪০ টাকা।

খাতুনগঞ্জের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বাজার সামাল দিতে ভারত সরকার পেঁয়াজ রফতানিতে ন্যূনতম মূল্য টনপ্রতি ৮৫০ ডলার নির্ধারণ করে দিয়েছে, এর পরদিন থেকেই চট্টগ্রামের পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে পেঁয়াজের দাম কেজিতে ১০-১৫ টাকা বাড়িয়ে দেন ব্যবসায়ীরা। তাৎক্ষণিকভাবে এর প্রভাব পড়ে খুচরা বাজারে।

শুক্রবার যেখানে পেঁয়াজের কেজি ছিল ৫০ টাকা, সেখানে সোমবার তা বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকার উপরে। পেঁয়াজের বাড়তি দামে ভুক্তভোগী সাধারণ মানুষ। চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে সবচেয়ে বেশি পেঁয়াজ আমদানি হয় ভারতের মহারাষ্ট্রের লাসাগাঁও ও নাসিক থেকে। কিন্তু খাতুনগঞ্জে গত এক সপ্তাহ ধরে ভারত থেকে পেঁয়াজের আমদানি কমে গেছে।

ব্যবসায়ীদের গুদামে যেসব পেঁয়াজ মজুদ আছে তারা সেগুলো এখন বাড়তি দামে বিক্রি করছেন। গত দুই দিন ধরে খাতুনগঞ্জে পেঁয়াজ বিক্রির পরিমাণ কমে গেছে। দাম কমার আশায় খুচরা ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজ কেনার পরিমাণ কমিয়ে দিয়েছেন। ঈদের আগে ভারতীয় পেঁয়াজের দাম ছিল কেজি প্রতি ৩৫ থেকে ৩৮ টাকা।

পিডিএসও/রি.মা