নির্ধারিত সময়ে শেষ হয়নি রামপুরা-বনশ্রী সড়কের সংস্কার কাজ

প্রকাশ : ১২ এপ্রিল ২০১৮, ১৯:৫৬

অনলাইন ডেস্ক

রাজধানীর রামপুরা ব্রিজ থেকে বনশ্রীর সকড়টি চলাচলের অনুপযুক্ত। এই সড়ক সংস্কারে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ঘোষিত সময় ইতোমধ্যেই পার হয়ে গেছে। এই সময় শেষ হওয়ার পর ডিএনসিসির প্যানেল মেয়র মো. ওসমান গণি বলছেন, শিগগিরই সড়কটি ভালো হয়ে যাবে, জনগণের ভোগান্তি কমবে। বৃহস্পতিবার বাড্ডার একটি চাইনিজ রেস্টুরেন্টে নগর উন্নয়ন সাংবাদিক ফোরাম বাংলাদেশ আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। ফোরামটির প্রকাশনা ‘ঢাকাই’-এর দ্বিতীয় সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন উপলক্ষে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ফোরামের সভাপতি অমিতোষ পালের সভাপতিত্বে বিশেষ অথিতির বক্তব্য দেন ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মেসবাহুল ইসলাম। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মতিন আব্দুল্লাহর সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন, ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ডা. জিন্নাত আলী, ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর জাকির হোসেন বাবুল, ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মফিজ আহমেদ, ২০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ নাসির, ২২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর লিয়াকত আলী, ২৩-এর মোস্তাক আহমেদ, সংগঠনটির সহসভাপতি আবুল কাশেম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা ডলি, স্মরণিকার সম্পাক ফয়সাল খান প্রমুখ। 
অনুষ্ঠানের অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ডিএনসিসির প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার সাঈদ আনোয়ার, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার ড. জাকির, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমোডর আবদুর রাজ্জাক, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ সাইফুল্লাহ, কোষাধ্যক্ষ সায়ীদ আবদুল মালিক, প্রশিক্ষণ ও গবেষণা সম্পাদক হাসান ইমন, কার্যনির্বাহী সদস্য জাহাঙ্গীর খান বাবু, সাঈদুল ইসলাম প্রমুখ।  
এদিকে এলাকার জলাবদ্ধতার জন্য ওয়াসাকে দূষলেন প্যানেল মেয়র মো. ওসমান গণি। তিনি বলেন, জলাবদ্ধতা নিরসনের দায়িত্ব ঢাকা ওয়াসার। আমরা তাদেরকে খাল, ড্রেন বারবার পরিষ্কার করার জন্য চিঠি দিলেও তারা সাড়া দেয়নি। এই কারণে মশার উপদ্রবও বাড়ছে। 
ডিএনসিসি সূত্রে জানা গেছে, এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের ভোগান্তির অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ১০ কোটি ৩৯ লাখ ৯৯ হাজার টাকা ব্যয়ে রামপুরা ব্রিজ থেকে বনশ্রীর প্রধান সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নেয় ডিএনসিসি। গত বছরের ডিসেম্বরে ১ দশমিক ৩৫ কিলোমিটার রাস্তার এই উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন করেন ডিএনসিসির প্যানেল মেয়র ওসমান গণি।
প্রকল্প উদ্বোধনের সময় প্যানেল মেয়র ওসমান গণি মার্চের মধ্যে কাজ শেষ করতে ঠিকাদারদের নির্দেশ দিয়েছিলেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ওসমান গণি বলেন, এই রাস্তাটিতে সবসময় অনেক চাপ থাকে। যে কারণে কাজে একটু সমস্যা হচ্ছে। তারপরও আমাদের প্রধান প্রকৌশলী নিজে গিয়ে রাস্তার অবস্থা দেখে এসেছেন। আমরা আশা করছি শিগগির রাস্তাটি ভালো হয়ে যাবে।
প্যানেল মেয়র বলেন, পুরনো উদ্যোগ আর নতুন পরিকল্পনা নিয়ে একটি সুন্দর নগরী গড়তে কাজ করে যাচ্ছি। মেয়র আনিসুল হক একটি সুন্দর নগরী গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন। আমরা তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা রেখে তেজগাঁও-সাতরাস্তা ট্রাক স্ট্যান্ড সড়কের নাম ‘মেয়র আনিসুল হক সড়ক’ নামে নামকরণ করার উদ্যোগ নিয়েছি। শিগগিরই নামফলক উন্মোচন করা হবে। 

পিডিএসও/ইমন/মুস্তাফিজ