ঝুঁকিতে অধিকাংশ এটিএম বুথ

প্রকাশ : ১৮ মে ২০১৭, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঝুঁকিতে রয়েছে দেশের অধিকাংশ অটোমেটেড টেলার মেশিন বা এটিএম বুথ। নিরাপত্তার জন্য যেসব বুথে অ্যান্টি স্ক্যামিং ডিভাইস বসেনি, কেন্দ্রীয় ব্যাংক সেগুলোতে জরুরিভিত্তিতে ডিভাইস স্থাপনের জন্য নির্দেশ দিলেও ব্যাংকগুলোর এ ব্যাপারে উৎসাহ কম।

সম্প্রতি বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) গবেষণার তথ্য অনুযায়ী জানা গেছে, গত এক বছরের মধ্যে এটিএম বুথগুলোর মাত্র ৫০ থেকে ৬০ শতাংশে বসেছে অ্যান্টি স্ক্যামিং ডিভাইস। বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, নির্দেশনার এক বছর পরও শতভাগ এটিএম বুথ ঝুঁকিমুক্ত করা সম্ভব হয়নি। কিন্তু ব্যাংকগুলোর পক্ষ থেকে বাংলাদেশ ব্যাংককে জানানো হয়েছে যে তাদের প্রায় ৮০ ভাগ বুথেই অ্যান্টি স্ক্যামিং ডিভাইস লাগানো হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখাসহ এটিএম বুথ নিয়ে খুব শিগগিরই ব্যাংকগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংক বৈঠক করবে বলে জানা গেছে। উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে হ্যাকাররা বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি ব্যাংকের এটিএম বুথ হ্যাক করে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নেয়। ওই বছরের ফেব্রুয়ারিতে এটিএম বুথে স্ক্যামিং ডিভাইস ইস্টার্ন, সিটি, ইউসিবি ও মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ৪০ গ্রাহকের এটিএম কার্ড নকল করে প্রায় ২১ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় সাইবার অপরাধীরা। এর আগে সিটি ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড নকল করে ৩ কোটি ৪০ লাখ টাকা চুরি করা হয়। এ ছাড়া ১৪ থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি প্রিমিয়ার ব্যাংকের চারটি বুথ ব্যবহার করে দেড়শটি নকল ক্রেডিট কার্ড দিয়ে ৩৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় সাইবার অপরাধীরা। এসব ঘটনার পরই বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে ফেব্রুয়ারি মাসেই এটিএম বুথ ও সাইবার নিরাপত্তা জোরদার করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়। এর সঙ্গে সঙ্গতি রেখে ওই বছরের ৮ মার্চ আরেকটি সার্কুলার জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। এতে ২০১৬ সালের ৩০ জুনের মধ্যে সব এটিএম বুথ ও সাইবার সিস্টেম নিরাপদ করতে বলা হয়। ওই দুই সার্কুলারে উল্লেখ করা হয়, নতুনভাবে স্থাপিত এটিএম বুথগুলোয় বাধ্যতামূলকভাবে অ্যান্টি স্ক্যামিং ও পিন শিল্ড ডিভাইস থাকতে হবে। আগে স্থাপিত বুথগুলোতেও এক মাসের মধ্যে অ্যান্টি স্ক্যামিং ও পিন শিল্ড ডিভাইস স্থাপনের নির্দেশনা দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

"