চিকিৎসা যন্ত্রপাতির শুল্ক প্রত্যাহার দাবি

প্রকাশ : ২৫ মার্চ ২০২০, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে রোগীর চিকিৎসাসেবা কাজে ব্যবহৃত সব ধরনের যন্ত্রপাতি আমদানিতে শুল্ক প্রত্যাহার চায় বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ অ্যাসোসিয়েশন (বিপিএমসিএ)। গতকাল জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সম্মেলন কক্ষে আগামী ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রাকবাজেট আলোচনায় সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. এনামুর রহমান এই প্রস্তাব উপস্থাপন করেন। এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিমের সভাপতিত্বে প্রাক বাজেটের আলোচনা সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনায় এনামুর রহমান বলেন, রেফারেল হাসপাতাল হিসেবে স্বীকৃত হাসপাতাল ব্যতীত অন্যান্য হাসপাতালের যন্ত্রপাতি আমদানিতে ১ শতাংশ আমদানি শুল্ক বিদ্যমান। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে চিকিৎসা কাজে ব্যবহৃত সব যন্ত্রপাতি প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে মানুষের জীবন রক্ষা করে থাকে। এছাড়া আমদানিকৃত যন্ত্রপাতিগুলো স্বাভাবিকভাবেই ব্যয়বহুল। তার ওপর অতিরিক্ত শুল্ক আরোপ করা হলে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুলো স্বল্প বা বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা দিতে পারবে না। তাই জনগণকে স্বল্পমূল্যে বা বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা দেওয়ার জন্য সব চিকিৎসা যন্ত্রপাতির ক্ষেত্রে শুল্কমুক্ত সুবিধা দেওয়া উচিত। এছাড়া সংগঠনটি সব বেসরকারি মেডিকেল কলেজের ওপর আরোপিত ১৫ শতাংশ আয়কর অব্যাহতিরও প্রস্তাব পেশ করে। এ বিষয়ে সংগঠনটি বলছে, দেশের বিদ্যমান বেসরকারি মেডিকেল কলেজ স্থাপন ও পরিচালনার নীতিমালা অনুসারে সব বেসরকারি কলেজ অলাভজনক প্রতিষ্ঠান। ফলে এ খাত থেকে অর্জিত সব আয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন খাতে ব্যয় হয়। তাই এখান থেকে অর্জিত আয়ের ওপর কর প্রদান করা সম্ভব নয়।

অন্যদিকে সেবা খাতের সব বাড়ি-অফিস ভাড়ার ওপর ৪ শতাংশ হারে ভ্যাট নির্ধারণের প্রস্তাব করে বেসরকারি এই মেডিকেল কলেজ সমিতি। অন্যান্য দাবির মধ্যে রয়েছে ব্যক্তিশ্রেণির করমুক্ত আয়সীমা বৃদ্ধি ও অনেকে ক্ষেত্রে দ্বৈত করবিষয়ক জটিলতা পরিহার ইত্যাদি। প্রাকবাজেট আলোচনায় বিপিএমসির সভাপতি এম এ মুবিন খানসহ এনবিআরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

"