‘অনেকে বলেন চাকরি নেই আমরা দেখি যোগ্য প্রার্থী নেই’

প্রকাশ : ২৫ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

চাকরির বাজারে যোগ্য প্রার্থীর অভাব রয়েছে উল্লেখ করে ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক ও রাইজিং বিডি ডটকমের প্রকাশক এস এম জাহিদ হাসান বলেছেন, ‘অনেকে বলেন চাকরি নেই, কিন্তু আমরা দেখি যোগ্য প্রার্থী নেই।’ গত শুক্রবার সকালে রাজধানীর ধানমন্ডির ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে ‘উইনোভেট এইচআর টুয়ার্ডস গ্রিন ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক লার্নিং সেশনে তিনি এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানের আয়োজন করে অ্যালায়েন্স অব গ্রিন এইচআর প্রফেশনালস বাংলাদেশ (জিএইচআরপিবি)।

এস এম জাহিদ হাসান বলেন, আমরা যাদের নিয়ে কাজ করব, যাদের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠান এগিয়ে যাবে, দেখা যায় কাজ সম্পর্কে তাদের ধারণা থাকে না। তারা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাদের শেখানো হয়নি। এসব বিষয়ে পড়ানো হয়নি।

দক্ষ মানবসম্পদ না থাকায় দেশের ক্ষতির দিক তুলে ধরে তিনি বলেন, আমাদের প্রায় ১ কোটি প্রবাসী আছেন, যারা দেশে নিয়মিত রেমিটেন্স পাঠান। দেশে জনসংখ্যা অনেক কিন্তু আমরা যুগোপযোগী হতে পারিনি, দক্ষকর্মী গড়ে তুলতে পারিনি। যার ফলে এই দেশে কর্মরত বিদেশিদের পারিশ্রমিক হিসেবে বড় অঙ্কের টাকা পরিশোধ করতে হচ্ছে। প্রবাসীরা বিদেশ থেকে টাকা উপার্জন করে দেশে পাঠান কিন্তু তারা যা পাঠান, সেই টাকার বড় অংশ দেশে কর্মরত বিদেশিদের পারিশ্রমিক হিসেবে পরিশোধ করতে হয়। শিল্পে বিনিয়োগের মাধ্যমে একটি দেশের উন্নতি হয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘চীন ও জাপান শিল্পে বিনিয়োগ করে উন্নত হয়েছে। আমরা কৃষি প্রধান দেশ, আমাদের উন্নয়ন করতে হলে কৃষির পাশাপাশি শিল্পের বিকাশ ঘটাতে হবে। একসময় দেশে ইলেকট্রনিক্স পণ্য আমদানি দ্বিতীয় বৃহত্তম ব্যবসা খাত ছিল। এখন ওয়ালটন দেশে ইলেকট্রনিক্স পণ্যের চাহিদা মিটিয়ে বিশ্বের ২৫টি দেশে রফতানি করে। সারা বিশ্বে মাত্র ১৫টি কোম্পানি কম্প্রেসার তৈরি করে, যার আটটি এশিয়ার। ওয়ালটন এদের একটি। উৎপাদিত কম্প্রেসার নিজস্ব ব্যবহারের পরে বাকি অংশ বিদেশে রফতানি করা হবে। সম্প্রতি হুন্ডাই কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি হয়েছে, তারা আমাদের পণ্য নেবে।

অ্যামাজনের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে, তারা আমাদের পণ্য বিশ্বে ছড়িয়ে দেবে। এর মানে আমরা শুধু দেশের চাহিদা পূরণ করছি না, বিদেশে রফতানি করে বৈদেশিক মুদ্রা দেশে নিয়ে আসছি।’ ওয়ালটন গ্রুপের বিষয়ে তিনি বলেন, ওয়ালটনকে অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে আজকের জায়গা পর্যন্ত আসতে হয়েছে। এসব অর্জন এক দিনে হয়নি। সব ধরনের নীতি-নির্ধারণী সাপোর্ট ও প্রশিক্ষিত জনবলের কারণে এবং সর্বোপরি এ দেশের আপামর জনগণের ভালোবাসায় এটা সম্ভব হয়েছে। ওয়ালটন গ্রুপে এখন সরাসরি ৩০ হাজার লোক কাজ করেন। এর বাইরেও প্রায় ২ লাখ মানুষ বিভিন্নভাবে ওয়ালটন গ্রুপের সঙ্গে কাজ করছেন। আমাদের এখানে অনেকে কাজ শিখে বিদেশে গিয়েও কাজ করছেন। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন এসডিএস অ্যাপারেল লিমিডেটের ম্যানেজিং ডিরেক্টর সৈয়দ এইচ আর দারা সোহাইল, জিএইচআরবিপির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো. রওশন আলী বুলবুল।

"