শিল্পের আওতায় আসছে কৃষিযন্ত্র

প্রকাশ : ১৮ জুন ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

কৃষিযন্ত্র উৎপাদন শিল্পের সম্প্রসারণের ওপর জোর দিতে যাচ্ছে সরকার। এ উদ্দেশ্যে তৈরি করা হচ্ছে একটি নীতিমালা। এটি বর্তমানে পর্যালোচনার পর্যায়ে রয়েছে। নীতিমালায় বলা হয়েছে, কৃষি কাজে ব্যবহৃত যন্ত্রসামগ্রী তৈরির শিল্পকে কৃষিভিত্তিক শিল্প হিসেবে গণ্য করবে সরকার।

সরকার কয়েক বছর ধরেই কৃষি যান্ত্রিকীকরণকে উৎসাহিত করে আসছে। নির্দিষ্ট কিছু যন্ত্রসামগ্রী কেনার ক্ষেত্রে হাওর অঞ্চলের কৃষককে ৭০ শতাংশ ও সারা দেশের কৃষককে ৫০ শতাংশ উন্নয়ন সহায়তা দিচ্ছে। তবে নীতিমালা না থাকায় দেশে যন্ত্রপাতির উৎপাদন ও আমদানিতে ভারসাম্য আনা সম্ভব হয়নি। এছাড়া যন্ত্রপাতি আমদানিতে কর ও শুল্ক সম্পর্কিত সমস্যা দীর্ঘদিনের। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নীতিমালা তৈরি হলে এসব সমস্যা দূর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সরকার থেকে উন্নয়ন সহায়তায় দেওয়া কৃষি যন্ত্রপাতি বিতরণে আরো স্বচ্ছতা আসবে।

সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায়, দেশে প্রথমবারের মতো তৈরি হতে যাচ্ছে জাতীয় কৃষি যান্ত্রিকীকরণ নীতিমালা ২০১৯। খাতটিতে শৃঙ্খলা আনা ও অগ্রাধিকারভিত্তিক সুনির্দিষ্ট কার্যক্রম গ্রহণ করার সুবিধার্থে এ কাজে হাত দিয়েছে সরকার। নীতিমালা তৈরি হলে কৃষি যন্ত্রপাতির উৎপাদন ও আমদানিতে থাকা সমস্যাগুলো দূর হবে বলে সংশ্লিষ্টরা প্রত্যাশা করছেন।

কৃষিবিদ এমদাদুল হক গণমাধ্যমকে বলেন, ‘কৃষি যন্ত্রসামগ্রী নির্মাণ দেশের অর্থনীতি এবং কৃষিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। এই খাতটি এখনো ভারী শিল্প হিসেবে চিহ্নিত। কৃষি যন্ত্রপাতি প্রস্তুতকারক বা প্রস্তুত শিল্পকে কৃষিভিত্তিক শিল্পের আওতায় আনা এখন সময়ের দাবিতে পরিণত হয়েছে।’

খসড়া নীতিমালা পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, এতে কৃষি উৎপাদন শিল্পের সম্প্রসারণে মোট আটটি কার্যক্রমের কথা বলা হয়েছে। কৃষি কাজে ব্যবহার্য যন্ত্রসামগ্রী তৈরির শিল্পকে কৃষিভিত্তিক শিল্প হিসেবে গণ্য করবে সরকার। মূলধনী যন্ত্রপাতির ওপর যুক্তিসঙ্গত হারে প্রণোদনামূলক আমদানি কর নির্ধারণ করা হবে। কৃষি যন্ত্রপাতি প্রস্তুত ও সংযোজন শিল্পে ব্যবহৃত যন্ত্রাংশের ক্ষেত্রে আমদানি শুল্ক রেয়াত সুবিধা অব্যাহত রাখা হবে। কৃষি কাজের যন্ত্র তৈরির শিল্পকে শিল্প নীতিতে অগ্রাধিকার খাত হিসেবে বিবেচনা করা হবে এই শিল্পের বিকাশের স্বার্থে। উদ্যোক্তাদের অর্জিত লভ্যাংশের ওপর আরোপিত আয়কর প্রদানের প্রয়োজন অনুসারে রেয়াতি সুবিধা প্রদান করা হবে। এ শিল্পের যন্ত্রাংশ বিক্রয় ও সরবরাহের ক্ষেত্রে ভ্যাট রেয়াত সুবিধার বিষয় বিবেচনা করা হবে।

"