কৃষি বাজেট বাস্তবায়নে নেই সঠিক দিকনির্দেশনা

প্রকাশ : ১৭ জুন ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে বরাদ্দ বেড়েছে কৃষি খাতে। প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকির প্রস্তাব রেখে এ খাতে ব্যয় ধরা হয়েছে ১৪ হাজার ৫৩ কোটি টাকা। তবে কৃষিপণ্য কেনার ক্ষেত্রে মধ্যস্বত্বভোগীদের বাদ দিয়ে মূল্য কমিশনের মত কার্যকরী কোনো পদক্ষেপের কথা উল্লেখ না থাকায় হতাশ হয়েছেন অর্থনীতিবিদরা। কৃষিতে দেয়া বাজেট বাস্তবায়নের সঠিক দিকনির্দেশনা নেই বলেও মনে করেন তারা।

জলবায়ু পরিবর্তন আর প্রতিকূল আবহাওয়া কৃষিতে প্রভাব ফেলেছে ব্যাপক। যার ফলে নিয়মিত সমস্যায় পড়তে হচ্ছে কৃষককে। এর মধ্যেও গেল এক দশকে কৃষিতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৩ দশমিক ৭ শতাংশ।

এক্ষেত্রে কৃষিতে ভর্তুকি বড় ভূমিকা রাখায় এবারের বাজেটেও রাখা হয়েছে বিশাল অঙ্কের ভর্তুকি। কৃষি খাতে সাড়ে ১৪ হাজার কোটি টাকারও বেশি শস্যের বহুমুখীকরণ, খামার যান্ত্রিকীকরণ, তাপমাত্রা সহনশীল ফসলের জাত উদ্ভাবনে নানা প্রতিশ্রুতির কথা উঠে এসেছে বাজেট বক্তৃতায়। যাকে কৃষিতে সরকারের সুনজরের প্রতিফল বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদ কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ। তবে বাজেটে কৃষি গবেষণা, কৃষক পুনর্বাসন, আধুনিক চাষাবাদের কলাকৌশল সম্প্রসারণ এবং উন্নত মানের বীজ উৎপাদন কার্যক্রমকে গুরুত্ব দেয়া হলেও বাজেট বাস্তবায়নের সঠিক দিকনির্দেশনা নেই বলে মনে করেন একুশে পদক বিজয়ী এই অর্থনীতিবিদ। গত কয়েক মাসে ধানের দাম নিয়ে সারা দেশ তোলপাড় হলেও কৃষিপণ্য কেনায় কোনো দিকনির্দেশনা না থাকায় হতাশ হয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও অর্থনীতিবিদ ড এম এম আকাশ। আগামীতে এই বাজেট বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে এসব বিষয়কে গুরুত্ব দেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

 

"