পুঁজিবাজারে কালো টাকার বিনিয়োগ চায় সিএসই

প্রকাশ : ১৭ জুন ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে ফ্ল্যাট বা জমি কেনা এবং ইকোনমিক জোনের মতো পুঁজিবাজারেও বিনা প্রশ্নে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের দাবি জানিয়েছে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই)। একইসঙ্গে শেয়ারবাজারের টেকসই উন্নয়ন এবং গুণগত সম্প্রসারণের জন্য বাজেট প্রস্তাবের আগে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের মাধ্যমে জানানো প্রস্তাবনাগুলো পুনর্বিবেচনার জন্য অর্থমন্ত্রীকে অনুরোধ জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

গতকাল রোববার ঢাকার সিএসইর প্রধান কার্যালয়ে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণা পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে সিএসইর ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) গোলাম ফারুক এ অনুরোধ জানান।

তিনি বলেন, এবারের বাজেটে অপ্রদর্শিত আয় নির্দিষ্ট করে প্রদান সাপেক্ষে বৈধকরণের বিধান রাখা হয়েছে। যা ফ্ল্যাট, জমি কেনা এবং ইকোনমিক জোনে বিনিয়োগ করা যাবে। এক্ষেত্রে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য কোনো বিশেষ সুবিধা দেয়া হয়নি। পাচার রোধ করা ও বিনিয়োগের স্বার্থে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনা প্রশ্নে নির্দিষ্ট পরিমাণ কর দেয়া সাপেক্ষে পুঁজিবাজারেও বিনিয়োগের সুযোগ দেয়ার জন্য অনুরোধ করছি।

তিনি আরো বলেন, বাজেটের জন্য সিএসই যে প্রস্তাবগুলো দিয়েছিল তার মধ্যে কোনোটি পূর্ণাঙ্গভাবে বাস্তবায়ন করা হয়নি। প্রস্তাবগুলো পুনর্বিবেচনার জন্য অর্থমন্ত্রীকে অনুরোধ করছি।

সিএসইর প্রস্তাবনাগুলো হলো তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর বিদ্যমান কর হার ২৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২০ শতাংশ হলে ভালো কোম্পানিগুলো শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হবে। নতুন তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর আয় তিন বছর করমুক্ত রাখা হলে অতালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলো তালিকাভুক্ত হতে উৎসাহিত হবে। এতে শেয়ারবাজারে গুণগত মানসম্পন্ন শেয়ারের জোগান বাড়বে যা বাজারে লেনদেন বৃদ্ধি ও স্থিতিশীলতা আনয়নে ভূমিকা পালন করবে। প্রস্তাবিত বাজেটে এসএমই কোম্পানিগুলোর করমুক্ত আয়সীমার জন্য বার্ষিক লেনদেন ৩৬ লাখ থেকে ৫০ লাখ টাকা বাড়ানো হয়েছে। স্টক এক্সচেঞ্জের নতুন প্রবর্তিত এসএমই বোর্ড বাস্তবায়ন, একটি মানসম্মত করপোরেট কাঠামো এবং রিপোর্টিংয়ের মাধ্যমে প্রত্যক্ষ কর বাড়ানোর জন্য এসএমই কোম্পানিগুলো ৩ বছর শূন্য হার কর নির্ধারণ করার প্রস্তাব পুনর্ব্যক্ত করছি।

এছাড়া ঘোষিত বাজেটে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত লভ্যাংশ আয়কে করমুক্ত রাখার প্রস্তাব করা হয়েছে, যা আমাদের প্রস্তাবিত সীমা ১ লাখ টাকায় উন্নীত করার জন্য অনুরোধ করছি। দেশের অর্থনীতির আকার এবং ব্যাংকিং খাতের অস্থিরতার পরিপ্রেক্ষিতে একটি শক্তিশালী ব্লক মার্কেট তৈরির লক্ষ্যে সব ধরনের বন্ড থেকে প্রাপ্ত আয়কে করমুক্ত রাখা এবং জিরো কুপন বন্ড থেকে প্রাপ্ত আয়ের করমুক্ত সুবিধা ব্যাংক, ইন্স্যুরেন্স ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ সব করদাতাকে অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব পুনর্বিবেচনার আহ্বান করছি। ২০১৩ সালের অর্থ আইন অনুযায়ী ৫৩ বিবিধ ধারা থেকে বন্ড ডিলিট করা হয়। কিন্তু অন্যান্য আইনে সিকিউরিটিজের সংজ্ঞায় বন্ড অন্তর্ভুক্ত থাকায় বন্ড লেনদেনের ওপর ০.০৫ শতাংশ হারে উৎসে কর কর্তন করা হয়। একটি শক্তিশালী এবং পৃথক বন্ড মার্কেট গঠনের লক্ষ্যে স্পষ্টভাবে ওই ধারা থেকে বন্ড লেনদেনে অব্যাহতি রাখা প্রয়োজন বলে মনে করছি।

এডিবি ও বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে সম্পাদিত ঋণ চুক্তির শর্ত হিসেবে প্রণীত ডিমিউচুয়ালাইজেশন আইন দ্রুত বাস্তবায়নের মাধ্যমে আমরা উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছি। ডিমিউচুয়ালাইজেশন প্রক্রিয়া বাস্তবায়নে সরকারও আমাদের সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করে আসছে। বর্তমানে সিএসই ক্রমহ্রাসমান হারে আয়কর প্রদান করে, যা এই অর্থবছরে শেষ হবে। এক্সচেঞ্জ ডিমিউচুয়ালাইজেশন আইন ২০১৩ এর বিধান অনুযায়ী মোট ইস্যুকৃত শেয়ারের শতকরা ২৫ ভাগ কৌশলগত বিনিয়োগকারীর কাছে বিক্রয় করতে হবে। সিএসই এখনো আইন অনুযায়ী কৌশলগত বিনিয়োগকারী নির্ধারণ করতে পারেনি। কৌশলগত বিনিয়োগকারীর কাছে শেয়ার বিক্রির জন্য চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জকে (সিএসই) ৫ বছরে জন্য কর অব্যাহতির সুবিধা দেয়া হলে ডিমিউচুয়ালাইজেশন আইন অনুযায়ী কৌশলগত বিনিয়োগকারী পেতে সহায়ক হবে এবং একইসঙ্গে তুলনামূলক ছোট এক্সচেঞ্জ হিসেবে দেশের শেয়ারবাজারে যথাযথ ভূমিকা পালনে সক্ষম হবে।

স্টক ব্রোকারদের উৎস কর কর্তনের হার পুনর্নির্ধারণের জন্য বারবার অনুরোধ সত্ত্বেও এই হার পূর্ববর্তী ০.০৫ শতাংশ বহাল রাখা হয়েছে। অধিকাংশ ব্রোকার হাউস বর্তমানে লোকসানি প্রতিষ্ঠানে পরিবর্তিত হওয়া সত্ত্বেও এসব ব্রোকারেজ হাউসগুলো থেকে ক্রমবর্ধমান হারে কর আদায় আয় করের মৌলিক নীতিরও পরিপন্থি বলে আমরা মনে করি। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে স্টক ব্রোকারদের উৎস কর কর্তনের হার ২০০৬ সালে চালুকৃত হারে অর্থাৎ ০.০১৫ শতাংশে পুনর্নির্ধারণের জোর দাবি জানাচ্ছি। বাজেটে শেয়ারবাজারের উন্নয়নের স্বার্থে কিছু প্রস্তাবনার প্রশংসাও করছে সিএসই। যেমন প্রস্তাবিত বাজেটে রুগ্ণ কোম্পানিকে ভালো কোম্পানি কর্তৃক একত্রীকরণ/অধিভুক্ত করার কথা বলা হয়েছে। এটি শেয়ারবাজারেরর জন্য একটি ভালো প্রস্তাব; ঘোষিত বাজেটে নগদ লভ্যাংশের পরিবর্তে বোনাস লভ্যাংশের ওপর ১৫ শতাংশ হারে করারোপের প্রস্তাব করা হয়েছে।

এছাড়া প্রস্তাবিত বাজেটে রিটেইনড আর্নিংস বা রিজার্ভ যদি পরিশোধিত মূলধনের ৫০ শতাংশের বেশি হয় তবে বাড়তি রিজার্ভের ওপর ১৫ শতাংশ হারে করের প্রস্তাব করা হয়েছে। যা কোম্পানিগুলো নগদ লভ্যাংশ প্রদানে উৎসাহিত করবে বলে আমরা আশা করছি; বিনিয়োগকে উৎসাহিত করার জন্য লভ্যাংশ আয়ের দ্বৈত কর তুলে নেয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। এতে বাজারে একটি ইতিবাচক প্রভাব পড়বে।

 

 

"