জুলাইয়ে বাড়ছে সঞ্চয়পত্রের মুনাফার উৎসে কর

প্রকাশ : ১৭ জুন ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

সঞ্চয়পত্রে মুনাফার হার না কমলেও মুনাফার ওপর উৎসে কর দ্বিগুণ করা হয়েছে। অর্থাৎ আগে উৎসে কর (চূড়ান্ত দায়) দিতে হতো ৫ শতাংশ, এখন দিতে হবে ১০ শতাংশ। এর আগে ২০১৬ সাল পর্যন্ত সঞ্চয়পত্রের মুনাফার ওপর ১০ শতাংশ হারে উৎসে কর কেটে রাখা হতো।

আর এ নিয়ে গ্রাহক পর্যায়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে। এত দিন যারা ৫ শতাংশ উৎসে কর দিয়ে আসছেন, তাদের জন্য কি এই হার বহাল থাকবে? নাকি নতুন ও পুরোনো সবার জন্যই আগামী ১ জুলাই থেকে ১০ শতাংশ উৎসে কর চালু হবে? যারা মুনাফার টাকা তোলেননি, তাদের ক্ষেত্রেই বা কী নিয়ম হবে?

এসব প্রশ্নের জবাবে জাতীয় সঞ্চয় অধিদফতরের পরিচালক আবু তালেব গণমাধ্যমকে বলেন, ‘বাজেট পাস হওয়ার আগে বর্তমানে যে নিয়ম আছে, সে নিয়মই থাকবে।’

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কর্মকর্তারাও বলছেন, ১০ শতাংশ উৎসে কর ১ জুলাই থেকেই কার্যকর হবে। যারা এখনো মুনাফার টাকা তোলেননি এবং যারা ৫ শতাংশ উৎসে কর দিয়েই মুনাফার টাকা তুলতে চান, তাদের উচিত হবে ৩০ জুনের মধ্যেই তা তুলে ফেলা। সেক্ষেত্রে তাদের বাড়তি কর দিতে হবে না।

উৎসে কর দ্বিগুণ করার কারণে সমাজের সীমিত আয় ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির সঞ্চয়পত্র গ্রাহকদের আয় কমে যাবে। যেমনÑ সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগের কারণে কোনো গ্রাহক যদি মাসে ৫ হাজার টাকা মুনাফা পেয়ে থাকেন, ১ জুলাইয়ের পর থেকে তিনি ৫ হাজার থেকে ৫০০ টাকা কম পাবেন। ব্যাংকের কাছ থেকে এ টাকা বুঝে নেবে এনবিআর।

আগামী অর্থবছরের জন্য উপস্থাপিত বাজেট বক্তৃতায় সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার বা উৎসে কর নিয়ে অর্থমন্ত্রী কোনো কথা বলেননি। বলেছেন, সঞ্চয়পত্রের কেনাবেচার ব্যবস্থাপনা আধুনিকায়নের কাজ চলছে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ যে ‘জাতীয় সঞ্চয় স্কিম অনলাইন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম’ চালু করছে তাতে সঞ্চয়পত্রের বিক্রি, মুনাফা ও নগদায়নের তথ্য পাওয়া সম্ভব হবে।

আরো চারটি সম্ভাবনার কথা বলেন অর্থমন্ত্রী। এগুলো হচ্ছে জাতীয় পরিচয়পত্রের ভিত্তিতে সঞ্চয়পত্র কেনার ঊর্ধ্বসীমা নিয়ন্ত্রণ করা যাবে, গ্রাহকের আসল ও মুনাফা ইলেকট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফারের (ইএফটি) মাধ্যমে স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরিশোধ করা সম্ভব হবে সরকারের আর্থিক ব্যবস্থাপনা ও শৃঙ্খলা নিশ্চিত হবে এবং এ খাতে সরকারের সুদ ব্যয় কমে আসবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অবসরপ্রাপ্ত একজন যুগ্ম সচিব গণমাধ্যমকে বলেন, সঞ্চয়পত্র চালুর দর্শনটা হচ্ছে সাধারণ মানুষকে এক ধরনের সুরক্ষা দেওয়া। কিন্তু সঞ্চয়পত্রের গ্রাহক কারা, সেই তথ্যই নেই সঞ্চয় অধিদফতরে। আর এই দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে রাজনীতিবিদ এবং ধনাঢ্য ব্যক্তিরাই সঞ্চয়পত্র বেশি কিনছেন এবং করের টাকায় বিপুল অঙ্কের মুনাফাও নিচ্ছেন তারা। গত সংসদ নির্বাচনের আগে নির্বাচন কমিশনে দাখিল করা হলফনামায় দেখা গেছে, মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যরা ১০, ২০ এমনকি ৪০ কোটি টাকা পর্যন্ত সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ করেছেন।

সঞ্চয়পত্রকে সরকার প্রতি বছরই বাজেটের ঘাটতি অর্থায়ন পূরণের অন্যতম উপায় হিসেবে বিবেচনা করে। চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র বিক্রি থেকে ২৬ হাজার ১৯৭ কোটি টাকা সংগ্রহের লক্ষ্য থাকলেও পরে তা বাড়িয়ে ৪৫ হাজার কোটি টাকা করা হয়।

প্রস্তাবিত বাজেটের পরিচালন ও উন্নয়ন ব্যয়ের অর্থনৈতিক বিশ্লেষণে দেখা গেছে, যত বেশি সঞ্চয়পত্র বিক্রি, সরকারের সুদ ব্যয়ও তত বেশি। আগামী অর্থবছরের জন্য সঞ্চয়পত্রের সুদ ব্যয় বাবদ বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৩২ হাজার ৮০০ কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের সুদ বাবদ বরাদ্দ রয়েছে ২৯ হাজার ৮১০ কোটি টাকা। আর ২০১৭-১৮ অর্থবছরে সঞ্চয়পত্রের সুদ বাবদ সরকারের ব্যয় হয়েছে ১৯ হাজার ১০৯ কোটি টাকা।

 

 

"