‘কৃষিতে চ্যালেঞ্জ ফসলের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করা’

প্রকাশ : ০৯ জুন ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

বর্তমানে দেশের কৃষিতে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ উৎপাদন খরচ বৃদ্ধির বিপরীতে ফসলের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করা। রোপণ ও সংগ্রহ মৌসুমে তীব্র শ্রমিক সংকট পরিস্থিতি আরো জটিল করে তুলছে। এ অবস্থায় কৃষিবিদরা জোর দিয়েছেন শস্যগুদাম ঋণ কার্যক্রমে। এতে ইউনিয়ন পর্যায়ে শস্য সংরক্ষণ কার্যক্রম যেমন শক্তিশালী হবে; তেমনি কম মূল্যে ফসল বিক্রি করতে হবে না কৃষককে।আমনের পর বোরো মৌসুমে ধানের ন্যায্যমূল্য না পেয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে খেতে আগুন দেওয়া কিংবা রাস্তায় ধান ছিটিয়ে প্রতিবাদ করেছেন কৃষকরা। শ্রমিক সংকটের কারণে ধান কেটে দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। কৃষিসংশ্লিষ্টরা বলছেন, উৎপাদনকালীন ঋণ পরিশোধে মৌসুম চলাকালীন প্রায় ৩০-৪০ শতাংশ ফসল নামমাত্র মূল্যে বিক্রি করেন কৃষক। এ অবস্থায় ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে শস্যগুদাম ঋণ কার্যক্রমের ওপর জোর দিয়েছেন তারা। এ কার্যক্রমের আওতায় সরকারি গুদামে ফসল রাখার বিপরীতে কৃষককে ব্যাংকঋণ দেওয়া হয়। দাম বৃদ্ধি পেলে ফসল বিক্রি করে গুদাম ভাড়া ও ঋণ পরিশোধ করেন কৃষক।

কৃষক সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক পলাশ কান্তি নাগ গণমাধ্যমকে বলেন, ‘উৎপাদন খরচের সঙ্গে ৩৩ শতাংশ মূল্য সহায়তা দিয়ে সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে প্রতিটি ফসল ক্রয় করতে হবে।’

বাজেট বিশ্লেষণে দেখা যায়, গেল পাঁচ অর্থবছরে কৃষিতে বরাদ্দ দেওয়া ৭৮ হাজার ৫২৫ কোটি টাকার বেশির ভাগই ব্যয় হয়েছে সার, তেল, বীজের ভর্তুকিতে। শ্রমিক সংকট নিরসনে কৃষি যান্ত্রিকীকরণে ভর্তুকি বাড়ানোর পরামর্শ কৃষিবিদদের।

বিআইডিএসের সাবেক গবেষণা পরিচালক ড. এম আসাদুজ্জামান বলেন, ‘কৃষক যেন ফসল তুলে সঙ্গে সঙ্গে বিক্রি করতে না পারেন, সেজন্য ভর্তুকি দিতে পারি আমরা। কীভাবে সেটা করা হবে, তা নিয়ে চিন্তা করা যেতে পারে। কৃষকের সঙ্গে কথা বলতে হবে, সেই সঙ্গে কথা বলতে হবে ব্যাংকের সঙ্গে।’

কৃষিপণ্যের বাজার তৈরির পাশাপাশি ন্যায্যমূল্য নিশ্চিতে স্বতন্ত্র মূল্য কমিশন গঠনের পরামর্শ কৃষি অর্থনীতিবিদদের।

শেকৃবির ডিন ড. মিজানুল হক কাজল বলেন, ‘এখন কিন্তু বাংলাদেশ থেকে অনেক কৃষিপণ্য বিদেশে রফতানি হচ্ছে। সেক্ষেত্রে প্রণোদনা দেওয়া যেতেই পারে। তার ফলে কৃষির বিপ্লব কাজে লাগানোর অনেক সুযোগ আছে।’

বরাদ্দকৃত অর্থ যেন অপচয় না হয়, সেদিকে সরকারকে লক্ষ্য রাখারও পরামর্শ দিয়েছেন কৃষি খাতসংশ্লিষ্টরা।

 

"