সময় বাড়ছে অ্যাকর্ডের

প্রকাশ : ১০ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

পোশাক খাতের সংস্কারবিষয়ক ইউরোপের ক্রেতাদের জোট অ্যাকর্ড অন ফায়ার অ্যান্ড বিল্ডিং সেফটি ইন বাংলাদেশের আবারও মেয়াদ বাড়ছে। ক্রেতাদের এ জোট আরো এক বছর থেকে যাওয়ার অনুমতি পাচ্ছে।

পোশাক খাতের উদ্যোক্তাদের দুই সংগঠন বিজিএমইএ এবং বিকেএমইএ সম্মত হওয়ায় অতিরিক্ত এক বছর সময়ের জন্য মেয়াদ বাড়াতে রাজি হয়েছে সরকার। তবে এ সংক্রান্ত ৮টি শর্ত মেনে নিয়েই এ দেশে কাজ করতে হবে অ্যাকর্ডকে। তিন মাস পর এসব শর্তে কাজ করতে রাজি হয়েছে অ্যাকর্ড।

আট শর্তের মধ্যে রয়েছে কোনো কারখানার সংস্কার দুর্বলতা কিংবা অ্যাকর্ড থেকে বাদ পড়লে ওই কারখানার মালিকের অন্য কারখানাকে জবাবদিহিতা কিংবা শাস্তি দেওয়া যাবে না। ট্রানজিশন মনিটরিং কমিটির মতামত ছাড়া কোনো কারখানাকে অ্যাকর্ড থেকে বাদ দেওয়া যাবে না। বাংলাদেশের পোশাক খাতে কোনো রকম নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে এমন নীতি নেওয়া যাবে না। ডিআইএফইকে পরিদর্শন সংক্রান্ত একমাত্র প্ল্যাটফর্ম হিসেবে মানবে অ্যাকর্ড। এর বাইরে অন্য কোনো প্ল্যাটফর্ম করা যাবে না। এছাড়া নিরাপত্তা পরিদর্শনে অভিন্ন মানদ- মেনে চলবে অ্যাকর্ড এবং তাদের ক্রেতারা। অ্যাকর্ড কিংবা অপর ক্রেতা জোট অ্যালায়েন্সের পক্ষ থেকে অনুমোদন করা কোনো নকশা মাঝপথে পরিবর্তন করা যাবে না। শ্রম অধিকারের নামে কোনো কার্যক্রমে হস্তক্ষেপ করবে না অ্যাকর্ড। সরকারের পক্ষ থেকে এসব শর্ত আদালতের দৃষ্টিতে এনেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা। আদালত এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের মতৈক্যে আসতে বলেছে। এরপর ট্রানজিশন অ্যাডভাইজরি কমিটি গঠিত হয়।

 

"