বাংলাদেশে টাটা গাড়ি বানাবে নিটল গ্রুপ

প্রকাশ : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক
ama ami

কিশোরগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চলে ভারতীয় জায়ান্ট টাটা গাড়ি তৈরি করবে দেশীয় কোম্পানি নিটল-নিলয় গ্রুপ। চলতি বছরের শেষের দিকে এই অঞ্চলে উৎপাদন শুরু হতে পারে। প্রথমে টাটার ডাবল কেবিন পিকআপ দিয়ে শুরু হবে গাড়ি তৈরি। ধীরে ধীরে টাটার সব গাড়ি তৈরি করা হবে। নিটল-নিলয় ও টাটার যৌথ বিনিয়োগে এ বেসরকারি অর্থনৈতিক অঞ্চলে ভারী শিল্প স্থাপিত হতে যাচ্ছে।

নিটল-নিলয় গ্রুপকে কিশোরগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চলের (কেইজেড) চূড়ান্ত সনদপত্র (কোয়ালিফিকেশন লাইসেন্স) দেওয়া হচ্ছে। সব শর্তপূরণ করায় চলতি মাসের শেষের দিকে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) এ লাইসেন্স প্রদান করবে।

এ বিষয়ে বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী গণমাধ্যমকে বলেন, টাটার মতো বড় কোম্পানি এ জোনে বিনিয়োগ করবে। এছাড়া আরও বড় কিছু কোম্পানি এখানে বিনিয়োগ করবে। সব শর্তপূরণ করায় সহসাই চূড়ান্ত সনদপত্র দেওয়া হবে। তিনি বলেন, এ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার বিষয়টি উন্নয়নে পিছিয়ে থাকা কিশোরগঞ্জ জেলাকে উন্নয়নের মূল স্রোতে আনতে সহযোগী ভূমিকা পালন করবে। কিশোরগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল হাওরাঞ্চলের প্রবেশদ্বার ভৈরবের কাছে থাকায় সহজে বিনিয়োগ আকর্ষণ ও বিপুল লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করবে।

বেজা সূত্র জানায়, কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন ভৈরব-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কসংলগ্ন পাকুন্দিয়া উপজেলায় ৯১ দশমিক ৬৩ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত। এ জোন দেশের সার্বিক আর্থসামাজিক উন্নয়ন তথা শিল্পায়ন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ বৃদ্ধি ও জিডিপি বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে। এর সঙ্গে বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগ রয়েছে, যা অর্থনৈতিক অঞ্চল থেকে সংশ্লিষ্ট বিনিয়োগকারীদের সরবরাহ করার প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। পাশাপাশি প্রয়োজনীয় পানি শোধনাগার প্ল্যান্ট, বর্জ্য পরিশোধনাগার প্ল্যান্ট, অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থাসহ সব পরিবেশবান্ধব ব্যবস্থা থাকবে। এছাড়া এ অর্থনৈতিক অঞ্চল ভৈরব-কিশোরগঞ্জ রেললাইনের গোচিহাটা রেলস্টেশনের সঙ্গে নিজস্ব লাইন দ্বারা সংযুক্ত রয়েছে। নিটল-নিলয়ের এ জোনে গার্মেন্ট ও টেক্সটাইল, তথ্যপ্রযুক্তি ও টেলিযোগাযোগ, লেদার ও ফুটওয়্যার, অ্যাগ্রোবেইজড ফুড অ্যান্ড বেভারেজ, ফার্মাসিউটিক্যাল, অটোমোবাইলস, স্টিল, ইলেকট্র্রনিকস, আইটি, ফার্নিচার, পাওয়ার প্ল্যান্টসহ রফতানিজাতীয় শিল্প খাত স্থাপন করা হতে পারে। বাণিজ্যিক উৎপাদনের প্রথম বছরে প্রায় ২ হাজার এবং পরবর্তী পাঁচ বছরের মধ্যে প্রায় ১৫ হাজারের বেশি কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে।

এ বিষয়ে নিটল-নিলয় গ্রুপের এক কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে জানান, ২০১৭ সালের ৩ জুলাই বেজা কিশোরগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল নামে আমাদের প্রি-কোয়ালিফিকেশন লাইসেন্স দেয়। সব শর্তপূরণ করায় আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি চূড়ান্ত সনদপত্র (কোয়ালিফিকেশন লাইসেন্স) দেওয়া হচ্ছে। লাইসেন্স পাওয়ার পর অবকাঠামো নির্মাণ শুরু হবে। সব ঠিক থাকলে চলতি বছরের শেষের দিকে পুরোপুরি উৎপাদন শুরু হবে। সে অনুযায়ী আমাদের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।

তিনি বলেন, ভারতের টাটা কোম্পানির সঙ্গে আমরা যৌথভাবে বিনিয়োগ করব। প্রথমে টাটার ডাবল কেবিন পিকআপ উৎপাদন শুরু হবে। ধীরে ধীরে সব গাড়ি উৎপাদন করা হবে। এছাড়া টাটা স্টিল তাদের পণ্য তৈরি করবে। এরই মধ্যে টাটার প্রতিনিধিরা অর্থনৈতিক অঞ্চল পরিদর্শন শেষে মতামত দিয়েছেন। টাটা ছাড়াও কয়েকটি বড় কোম্পানি এ অঞ্চলে বিনিয়োগে আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

"