মেলার শেষ দিনে করদাতাদের উপচেপড়া ভিড়

রেকর্ড ২ হাজার ৪৬৮ কোটি টাকা কর আদায়

প্রকাশ : ২০ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলার গতকাল সোমবার ছিল শেষ দিন। শেষ দিনে মেলায় ছিল করদাতাদের উপচেপড়া ভিড়। গতকাল আয়কর দিতে হুমড়ি খেয়ে পড়ে ছিলেন করদাতারা। ঝামেলাহীনভাবে কর দিতেই এই ভিড়। সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলায় মোট আয়কর আদায় হয়েছে ২ হাজার ৪৬৮ কোটি ৯৪ লাখ ৪০ হাজার ৮৯৫ টাকা। যা ২০১৭ সালের আয়কর মেলার তুলনায় ২৫১ কোটি ৬১ লাখ ২৬ হাজার ৬৭৪ টাকা বেশি। প্রবৃদ্ধি ১১ দশমিক ৩৫ শতাংশ। ২০১৭ সালে আয়কর মেলায় আদায় হয়েছিল ২ হাজার ২১৭ কোটি ৩৩ লাখ ১৪ হাজার ২২১ টাকা।

রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে শেষ দিন গতকাল সকাল থেকেই করদাতাদের ব্যাপক উপস্থিতি দেখা গেছে। এবারের মেলায় বয়স্ক নাগরিকদের চেয়ে তরুণদের আনাগোনা ছিল চোখে পড়ার মতো। পুরুষদের পাশাপাশি নারীরাও সমান তালে কর দিচ্ছেন। তাদের অনেকেই সপরিবারে এসেছেন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রতিদিনের মতোই গতকাল করদাতাদের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে মেলায়। করদাতা এবং সেবা গ্রহীতাসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষের উপস্থিতিতে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায় মেলা প্রাঙ্গণ।

মাজেদুল ইসলাম যাত্রাবাড়ী থেকে এসেছেন কর দিতে। তিনি বলেন, গত চার বছর ধরে কর মেলায় আয়কর বিবরণী জমা দিচ্ছি। এবার দেশের বাইরে থাকার কারণে শেষ দিনে আয়কর বিবরণী জমা দিতে হলো। কর অফিসের পরিবেশ মেলার মতো হলে রাজস্ব নিয়ে সরকারকে চিন্তা করতে হবে না বলে মনে করেন তিনি।

প্রথমবারের মতো আয়কর বিবরণী জমা দিলেন তরুণ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী জামাল হোসেন। তিনি বলেন, মেলার পরিবেশ চমৎকার। আয়কর বিবরণী জমা দিয়ে সেটার এক সেট ফটোকপি নিজের কাছে রেখে দিয়েছেন বলে জানান তিনি। কারণ আগামী করবর্ষে যাতে তিনি কারো সহযোগিতা ছাড়া নিজেই রিটার্ন ফরম পূরণ করতে পারেন।

এনবিআর সদস্য ও মেলার সমন্বয়কারী জিয়া উদ্দিন মাহমুদ বলেন, মেলার শেষ দিন সোমবার যতক্ষণ পর্যন্ত করদাতারা লাইনে থাকবেন ততক্ষণ পর্যন্ত রিটার্ন জমা নেওয়া হবে। রোববারও আমরা নির্ধারিত সময়ের পরে রিটার্ন জমা নিয়েছি।

এবার নিয়ে নবম বারের মতো অনুষ্ঠিত হলো জাতীয় আয়কর মেলা। এ বছর রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে মেলার ছয় দিনে ১ হাজার ৮৯৯ কোটি ৩৯ লাখ ১৬ হাজার ৩ টাকার আয়কর সংগ্রহ হয়েছে বলে জানিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা সৈয়দ এ মুমেন। তিনি বলেন, মেলার ষষ্ঠ দিন গতকাল রোববার ঢাকাসহ দেশের ৮ বিভাগীয় শহর, ২১ জেলা শহর এবং ৩৮ উপজেলা সদরসহ ৬৭টি স্পটে আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই ছয় দিনে সেবা গ্রহণ করেছেন ২ লাখ ২৭ হাজার ৩৬৭ জন। তাদের মধ্যে রিটার্ন দাখিল করেছেন ৬৯ হাজার ৩৬৩ জন, নতুন ইটিআইএন রেজিস্ট্রেশন করেছেন ৭ হাজার ১০৭ জন। গত রোববার ষষ্ঠ দিনে আয়কর সংগ্রহ হয়েছে ৩৪১ কোটি ২৯ লাখ ৭৩ হাজার ৪৭৬ টাকা । করদাতাদের ব্যাপক উৎসাহ ও আগ্রহের মধ্য দিয়ে দেশের ৮টি বিভাগ, ২১টি জেলা এবং ৩৮টি উপজেলাসহ মোট ৬৭টি স্পটে আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সারা দেশে করদাতারা স্বতঃস্ফূর্তভাবে কর প্রদান ও সেবা গ্রহণ করেছেন। বিশেষ করে পেশাজীবী, চাকরিজীবী, তরুণ ও নারী করদাতাদের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়। মেলায় ছিল আয়কর রিটার্ন দাখিল, ই-টিআইএন গ্রহণ (নতুন ও পুরাতন), ই-পেমেন্ট, ই-ফাইলিং, ই-পেমেন্টের ব্যবস্থা। মেলায় আসা মুক্তিযোদ্ধা, নারী, প্রতিবন্ধী ও প্রবীণ করদাতাদের জন্য ছিল আলাদা বুথ। মেলায় করদাতাদের যাতায়াতের সুবিধার জন্য রাজধানীর টিএসসি, রামপুরা, বেইলি রোড, মতিঝিল, মিরপুর ও উত্তরা থেকে ১৫টি শাটল বাসের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। ২০১০ সাল থেকে শুরু হওয়া আয়কর মেলার পরিধি এবং মেলার মাধ্যমে আয়কর বিভাগের সেবার পরিসর দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। এদিকে সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলায় মোট আয়কর আদায় হয়েছে ২ হাজার ৪৬৮ কোটি ৯৪ লাখ ৪০ হাজার ৮৯৫ টাকা। যা ২০১৭ সালের আয়কর মেলার তুলনায় ২৫১ কোটি ৬১ লাখ ২৬ হাজার ৬৭৪ টাকা বেশি। প্রবৃদ্ধি ১১ দশমিক ৩৫ শতাংশ। ২০১৭ সালে আয়কর মেলায় আদায় হয়েছিল ২ হাজার ২১৭ কোটি ৩৩ লাখ ১৪ হাজার ২২১ টাকা। এবার আয়কর মেলায় সেবা নেন ১৬ লাখ ৩৬ হাজার ২৬৬ জন। রিটার্ন দাখিল করেন ৪ লাখ ৮৭ হাজার ৫৭৩ জন। ই-টিআইএন নেন ৩৯ হাজার ৭৪৩ জন। মেলার সপ্তম দিনে আয়কর আদায় হয়েছে ৫৭৯ কোটি ৫৫ লাখ ২৪ হাজার ৭৯২ টাকা। যা গত বছরের মেলার সপ্তম দিনের তুলনায় ৩৩ দশমিক ৬৩ শতাংশ বেশি।

"