মধ্যবিত্তের লেখক

প্রকাশ : ০১ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০

এম. মনসুর আলী

আজ ১ নভেম্বর। লেখক সাদত আল মাহমুদের জন্মদিন। তিনি একজন স্বপ্নদ্রষ্টা। স্বপ্ন দেখেন, স্বপ্ন দেখান এবং সেই স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে অদম্য চেষ্টা করেন। প্রচন্ড আশাবাদী মানুষ।

সাদত আল মাহমুদ শুধু ঔপন্যাসিকই নন, নাট্যকার ও শিশুসাহিত্যিকও। তিনি উচিতবাদী, চরম কৃতজ্ঞ, সাদামাটা সহজ-সরল সবুজ মনের মানুষ। লেখক হিসেবে সাদতের মধ্যে খুঁজে পাওয়া যায় বাঙালির মধ্যবিত্ত জীবন ছবির নিপুণ কারিগরের ভূমিকা।

দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ সাদত আল মাহমুদ ২ দশক ধরে লিখছেন। মধ্যবিত্তের ছোট ছোট সুখ আর বড় বড় দুঃখকে পরম আদরে সাহিত্য বানিয়েছেন। আর সেসব আদরমাখা লেখা পড়ে এই প্রজন্মের অনেকের চোখে জল ঝরেছে। সমাজের অসংগতি নিপুণভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন তার কথাসাহিত্যে।

‘চিতার আগুনে’ উপন্যাস সাদত আল মাহমুদের প্রকাশিত প্রথম বই। উপন্যাসের পাশাপাশি ছোটগল্প, রম্যরচনা, প্রবন্ধ ও ভৌতিক গল্প লেখেন। প্রাঞ্জল ভাষা, স্বচ্ছ বিচার-বিশ্লেষণ আর সূক্ষ্ম পর্যবেক্ষণ শক্তি লেখাকে কী পরিমাণে শাণিত করে তোলেÑ তার উপন্যাস পড়লেই বুঝবেন।

সাদত আল মাহমুদ ১৯৯৭ সালের দিকে নাটক লেখার কাজ শুরু করেন এবং ২০১৪ সাল পর্যন্ত বেশ কয়েকটি নাটক রচনা করেছেন। তিনি বাংলাদেশ বেতারে দীর্ঘদিন নাট্যকার হিসেবে কাজ করেছেন।

বইয়ের পাঠকের বেলায়ও সাদত আল মাহমুদ বেশ সাবলীল ও সচেতন। তার লেখা উপন্যাসের মধ্যে বেশি সমাদৃত হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের কাহিনি নিয়ে লেখা ‘রাজাকার কন্যা’। শিশুদের জন্য লিখেছেন ‘ভূত ধরার অভিযান’ ও ‘গগেনদার গল্পের ঝুড়ি’। সমকালীন উপন্যাসের মধ্যে আছেÑ ‘চিতার আগুনে’, ‘রমণীদ্বয়’, ‘প্রসব বেদনা’ ও ‘শেষ বেলায়’।

 

 

"