জলকন্যা

প্রকাশ : ১০ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

বিবিকা দেব

পাহাড়ের বুক চিরে প্রবাহিত ধারা নীরবে বয়ে চলে, সমতলে হামাগুড়ি দিতে দিতে সৃষ্টি স্রোতের কাঁপন। বুকের খাঁজে-খাঁজে ধারণ করে অসংখ্য লতাগুল্ম। নুড়ি-পাথর ও প্রবালের সাথে যুদ্ধে সজ্জিত ক্ষতবিক্ষত হয়ে বয়ে চলে সংগোপনে। জলে জলে ভরে ওঠে সমস্ত শরীর; পূর্ণতা পায় যৌবনা নদী। জল ও বায়ু প্রেম জাগিয়ে তোলে ঊর্মির স্পন্দন। সূর্যের ঝলমলে সোনালি আলো হাসে ঊর্মির সাথে। উঁকি দেয় রাতের চাঁদ-দর্পণে মুখ দেখবে বলে। চাঁদের সন্ধি দেখে হাসে তারার দল।

বোবা কান্নার শব্দ কেউ কি শুনতে পায়? রণরঙ্গিনী হয়ে উঠে দু’পাশের যা কিছু আছে দুমড়ে-মুচড়ে স্রোতের টানে ভাসিয়ে নিয়ে যায়। ফিরে আসে অবসন্ন দেহ নিয়ে, উর্বরা করে ফসলের জমি-মাঠ প্রান্তরে পলির আবরণ দিয়ে। মন খুশিতে নাচে মাঝির কণ্ঠে ভাটিয়ালি গানের সুর শুনে। অপলক দৃষ্টিতে চেয়ে থাকি-নিস্তব্ধে বয়ে চলে শান্ত স্রোতস্বিনী।

"