দামুড়হুদায় চোরায় পথে ভারতীয় গরু-মহিষ

প্রকাশ : ০৫ জুলাই ২০২০, ০০:০০

দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি

আসন্ন কোরবানির ঈদে ভারতীয় গরু প্রবেশ করবে না। সরকারের এমন ঘোষণায় করোনাকালেও দেশীয় খামারিরা আশায় বুক বেঁধেছিলেন। কিন্তু চোরাই পথে ভারতীয় গরু আসতে থাকায় তাদের আশার গুড়ে বালি পড়ছে। জানা গেছে, কোরবানির আগে দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা থানাধীন সীমান্ত এলাকার ঠাকুরপুর, চাকুলিয়া, ফুলবাড়ি দিয়ে রাতের আঁধারে সীমান্তরক্ষীদের গুলি উপেক্ষা করে অবৈধ পথে ভারতীয় গরু-মহিষ নিয়ে আসছে চোরাকারবারিরা।

ইতোমধ্যে চুয়াডাঙ্গা-৬ বিজিবির সদস্যরা বেশ কয়েকটি গরু-মহিষের চোরাচালান আটক করেছে। করোনাকালে পরীক্ষা ছাড়াই ভারতীয় গরু হাটবাজারে বিক্রি করলে তা জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক হুমকি হিসেবে দেখা দিতে পারে বলে আশঙ্কা করছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

খামারিরা জানান, করোনাকালে আয়-উপার্জন বন্ধ। কোরবানির ঈদকে ঘিরে গরু মোটাতাজা করে কিছু লাভের আশা করছেন তারা। কিন্তু অবৈধ পথে ভারতীয় গরু-মহিষ দেশে এলে তাদের পথে বসতে হবে। এভাবে ঈদের আগে ভারতীয় গরু-মহিষ প্রবেশ করলে গবাদি পশু পালনে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন দেশীয় খামারিরা।

দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু হেনা মোহাম্মদ শুভ জানান, চোরাইপথে ভারতীর গরুর রোগবালাই সম্পর্কে কিছু জানা সম্ভব নয়। এসব গবাদি পশুর মাংসে স্বাস্থ্যঝুঁকির আশঙ্কা থাকে। তবে পরীক্ষা করে জবাই করলে সেই ঝুঁকি এড়ানো যায়।

দর্শনা থানার ওসি মাহাবুর রহমান জানান, ভারত থেকে চোরাই পথে আসা গরু-মহিষের বেশ কয়েটি চালান আটক করেছে বিজিবি। আমরাও চোরাকারবারিদের আটক করতে তৎপর।

 

"