চট্টগ্রামে ২০০ পুলিশ কোয়ারেন্টাইনে

প্রকাশ : ১৪ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০

মিনহাজুল ইসলাম, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে পটিয়ায় ছয় বছরের শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গত রোববার রাত আড়াইটার দিকে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. জামাল মোস্তফা। এ নিয়ে চট্টগ্রামে করোনায় দুজনের মৃত্যু হয়েছে। মারা যাওয়া শিশু পটিয়া উপজেলার হাইদগাঁও ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড ওসমান পাড়ার বাসিন্দা। ওই শিশুর এক চাচা এক মাস আগে হংকং থেকে গ্রামে আসেন। এক সপ্তাহ থাকার পর তিনি হংকং চলে যান। শিশুটি প্রতিবন্ধী ছিল বলে পরিবারের বরাদ দিয়ে জানান আরএমও। হাসপাতাল সূত্র জানা যায়, গত শনিবার সকালে শ্বাসকষ্ট নিয়ে পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয় আক্রান্ত শিশুকে। ভর্তির পর রোববার করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়। রাতে পাওয়া রিপোর্টে কোভিড-১৯ পজেটিভ আসে। ওই রাতেই বিশেষ অ্যাম্বুলেন্সে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে আনা হয় তাকে। চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের আরএমও ডা. জামাল মোস্তফা প্রতিদিনের সংবাদকে জানান, গত রোববার রাত ২টা ১০ মিনিটের দিকে হাসপাতাল আইসোলেশ ইউনিটে ভর্তি করা হয় শিশুটিকে। রাত আড়াইটার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শিশুর মৃত্যু হয়। চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি প্রতিদিনের সংবাদকে জানান, করোনায় মৃতদের নগরীর বায়েজিদ বোস্তামি এলাকার আরেফিন নগরের একটি কবরস্থানে দাফনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। এদিকে গত রোববার রাতেই কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার পর পটিয়া ইউএনও ফারজানা জাহান উপমা, এসিল্যান্ড ইনামুল হাসান ও থানার ওসির নেতৃত্বে প্রশাসনের টিম হাইদগাঁও ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে পাড়াটি লকডাউন করে দেয়। সম্প্রতি তার সঙ্গে যারা মিশেছে খবর নিয়ে তাদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে বলে জানান ইউএনও। অপরদিকে গত রোববার রাতে চট্টগ্রাম জেলায় আরো পাঁচজন করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে প্রতিদিনের সংবাদকে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হাসান শাহরিয়ার কবীর। তিনি বলেন, চট্টগ্রামে ৯৬ জনের নমুনা পরীক্ষার মধ্যে সাতজনের পজেটিভ এসেছে। এ পর্যন্ত মোট ৬৮৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

 

"