করোনা ইউনিট চালু হচ্ছে না ঢামেকে

প্রকাশ : ১২ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে আপাতত চালু হচ্ছে না করোনা ইউনিট। গতকাল শনিবার ইউনিটটি চালু হওয়ার কথা ছিল। অন্য রোগীদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে ঢামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আপাতত এই সিদ্ধান্ত থেকে পিছিয়ে এসেছে বলে জানিয়েছেন ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক এ কে এম নাসির উদ্দিন। এর আগে গত শুক্রবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ বার্ন ইউনিটকে করোনা রোগীদের চিকিৎসায় ব্যবহার করা বিষয়ে একটি আদেশ জারি করেছিল। ওই আদেশে বলা হয়, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পাওয়ায় ঢাকা মহানগরীতে কোভিড-১৯ হাসপাতাল সম্প্রসারণের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে এবং ঢামেক হাসপাতাল চত্বরে অবস্থিত বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটকে কোভিড-১৯ হাসপাতাল হিসেবে ডেডিকেটেড করা অপরিহার্য হয়ে পড়েছে।

অতিরিক্ত সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে ঢামেক হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে চিকিৎসাধীন রোগীদের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে স্থানান্তরের অনুরোধ জানানো হয়।

চিঠি পাওয়ার পর ঢামেক হাসপাতাল ও শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট প্রস্তুতি শুরু করেছিল। গতকাল সকালে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট বৈঠকও করে বলে জানান হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক হোসাইন ইমাম। দুপুরের দিকে তারা জানতে পারেন আপাতত রোগী স্থানান্তর হচ্ছে না।

জানা গেছে, ঢামেক হাসপাতালে ঢাকা ছাড়াও দেশের দূর-দূরান্ত থেকে বিভিন্ন রোগে আক্রান্তরা আসেন। জরুরি বিভাগ থেকে চিকিৎসা নেওয়ার পর তারা সংশ্লিষ্ট বিভাগে স্থানান্তরিত হন। বার্ন ইউনিট এই জরুরি বিভাগ লাগোয়া। অত্যন্ত সংক্রামক হওয়ায় এই রোগ অন্য রোগে আক্রান্তদের ক্ষতির কারণ হতে পারে বলে ঢামেকের চিকিৎসকরা মনে করছেন। সে কারণেই আপাতত করোনা ইউনিট চালু না করার ব্যাপারে মন্ত্রণালয়কে জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

তবে হাসপাতালের পরিচালক এ কে এম নাসির উদ্দীন বলেন, আমরা এখন একটা যুদ্ধাবস্থার মধ্যে আছি। পরিস্থিতি যেদিকে মোড় নেবে আমাদের সিদ্ধান্তও সেভাবে নিতে হবে। কাজেই রোগীর সংখ্যা বেড়ে গেলে আমাদের হয়তো সিদ্ধান্ত বদলাতে হবে।

 

"