শিক্ষাঙ্গনে দলীয় রাজনীতি নিষিদ্ধ চায় টিআইবি

প্রকাশ : ১১ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

বুয়েটে আবরার ফাহাদ হত্যাকান্ডে ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের নেতা-কর্মীদের জড়িত থাকার অভিযোগের প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে দলীয় রাজনীতিমুক্ত করার দাবি জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যাকান্ড নিয়ে বিক্ষুব্ধ বুয়েট শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছাত্ররাজনীতি

নিষিদ্ধের শোর ওঠার মধ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামানও একই দাবি জানান।

তিনি বলেন, আবরার হত্যা কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। এটি রাজনৈতিক অঙ্গনে দীর্ঘদিনের লালিত মরণব্যাধির লক্ষণ মাত্র। এর প্রতিকার সরকারেরই হাতে, রাজনৈতিক নেতৃত্বের হাতে। বাংলাদেশে ছাত্র আন্দোলনের গৌরবের ইতিহাস স্মরণ করেই ইফতেখারুজ্জামান বলেন, দেশের ক্রান্তিলগ্নে শিক্ষার্থীরাই বার বার সোচ্চার হয়েছেন, কার্যত জাতিকে পথ দেখিয়েছেন, সফল নেতৃত্ব দিয়েছেন। আজ তাদেরই উত্তরসূরিদের ব্যবহার করা হচ্ছে হীন রাজনৈতিক স্বার্থে। রাজনীতির দুর্বৃত্তায়নের প্রক্রিয়ায় তারা অন্যতম সহযোগীতে পরিণত হয়েছে। দলীয় রাজনীতিতে যুক্ত হয়ে শিক্ষকরাও ছাত্রদের সুপথ দেখাতে ব্যর্থ হচ্ছেন বলে মনে করেন ইফতেখারুজ্জামান। আমাদের প্রত্যাশা এবং দাবি, এখনই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিজেদের দলীয় কার্যক্রম নিষিদ্ধ করুন; দলীয় রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতাপুষ্ট ছাত্র সংগঠনের সব কার্যক্রম বন্ধ করুন; সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিজ উদ্যোগে ছাত্র সংগঠন বিকশিত হওয়ার পরিবেশ সৃষ্টি করুন; শিক্ষাঙ্গনের শিক্ষক, কমকর্তা-কর্মচারীদের সংগঠনের দলীয় রাজনীতি বন্ধে কঠোর উদ্যোগ নিন এবং সব ধরনের দলীয় রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতা ও যোগসাজশ বন্ধ করুন। বুয়েটের ঘটনার পর ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি আরো মহল থেকেও ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবি উঠেছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, তিনি ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের বিপক্ষে, তবে বুয়েট কর্তৃপক্ষ চাইলে তাদের ক্যাম্পাসে রাজনীতি নিষিদ্ধ করতে পারে।

ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের বিরোধিতা করে সিপিবি সভাপতি ও ডাকসুর সাবেক ভিপি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেছেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে দখলদারিত্ব বন্ধ করে বরং ছাত্র রাজনীতি উন্মুক্ত করতে হবে। ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুরও বলেছেন, ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ নয়, বরং বন্ধ করতে হবে গুন্ডামি।

 

"