জামতৈল রেলওয়ে স্টেশনে টিকিট বাণিজ্যের অভিযোগ

প্রকাশ : ০৯ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০

কামারখন্দ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি

সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার জামতৈল রেলওয়ে স্টেশনের দায়িত্বরত বুকিং সহকারী মাহফুজের বিরুদ্ধে টিকিট বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। তথ্য অনুসন্ধানে জানা যায়, ঈদ-পরবর্তী জামতৈল-ঢাকা রুটে সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেসসহ বেশ কিছু আন্তঃনগর ট্রেনের আগাম টিকিট নিতে প্রতিদিন সকাল সাড়ে ৭টা থেকে ৮টা পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয় জামতৈল রেলওয়ে স্টেশন কর্তৃপক্ষ। কিন্তু লাইনে দাঁড়িয়ে না মিললেও, অতিরিক্ত টাকা দিলেই মিলছে আগাম টিকিট। টিকিট বিক্রিতে অনিয়মের কথা জানতে চাইলে সাংবাদিকের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন বুকিং সহকারী মাজফুজুর রহমান।

এ ছাড়া একই আসনের একাধিক টিকিট বিক্রি ও যাত্রীদের সঙ্গে দুর্ব্যহারের অভিযোগ রয়েছে বুকিং সহকারী মাজফুজের বিরুদ্ধে। উপজেলার আলোকদিয়ার গ্রামের গোলাম কিবরিয়া বলেন, প্রথম দিকে টিকিট নিতে গেলেও আসন শেষ হয়ে গেছে বলে জানায়। কিন্তু পরক্ষণে অন্য লোক পাঠালে অতিরিক্ত টাকা দিলে ট্রেনের আসন পাওয়া যায়। জামতৈল গ্রামের আমানুল্লাহ বলেন, গত বুধবার ভোর থেকেই আমি টিকিটের জন্য লাইনে ছিলাম। সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেস ট্রেনের ১০৫টি আসন ১০-১২ জন যাত্রীকে ট্রেনের টিকিট দিয়েই বলে ট্রেনের আসন সংখ্যা শেষ।

এ বিষয়ে জামতৈল রেলওয়ে স্টেশনের বুকিং সহকারী মাহফুজের কাছে জানতে চাইলে, তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন এবং এ প্রতিবেদকের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন। তিনি বলেন, আরে যান যান কত সাংবাদিক দেখছি? নিউজ করেন যান, নিউজ করে আমার যা পারেন করেন। জামতৈল রেলওয়ে স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন মাস্টার আব্দুল হান্নান বলেন, ‘বুকিং সহকারী মাহফুজের বিরুদ্ধে টিকিট বাণিজ্যের বিষয়ে কেউ আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ দিলে আমরা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে পাঠালে তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।’

এ বিষয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ে রাজশাহীর চিফ কমার্শিয়াল ম্যানেজার (পশ্চিম) এ এম এম শাহনেওয়াজ বলেন, ‘আমরা এই ধরনের অভিযোগগুলো খুব গুরুত্বের সঙ্গে দেখছি। জামতৈল রেলওয়ে স্টেশনের বুকিং সহকারীর বিরুদ্ধে যদি কেউ আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ দেয়; তা হলে আমরা বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।’

 

"