নতুন ওষুধে ৮০ শতাংশের বেশি মশা অজ্ঞান

প্রকাশ : ০৭ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীসহ সারা দেশে ডেঙ্গু রোগের প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় মশা নিধনে নতুন ওষুধের মাঠপর্যায়ে পরীক্ষা চালিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে (ডিএসসিসি)। পরীক্ষায় ভারত থেকে আনা নতুন ওষুধে ৮০ শতাংশের বেশি মশা অজ্ঞান বা নক ডাউন হয়েছে। তাই প্রাথমিকভাবে ওষুধ পাস করেছে বলে জানিয়েছেন ডিএসসিসির কর্মকর্তা ও বিভিন্ন সংস্থার বিশেষজ্ঞরা।

গতকাল মঙ্গলবার ডিএসসিসি নগর ভবন প্রাঙ্গণে তিন ধরনের ওষুধের তিনটি করে মোট ৯টি নমুনায় ওষুধের পরীক্ষা করা হয়। এ সময় ডিএসসিসি মেয়র সাঈদ খোকন ও প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তার উপস্থিতিতে পরীক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করেন ডিএসসিসির প্রধান ভান্ডার ও ক্রয় কর্মকর্তা মোহাম্মদ নুরুজ্জামান।

এতে আরো উপস্থিত ছিলেন আইইডিসিআর’র প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মিনতি সাহা ও কৃষি অধিদফতরের প্ল্যান্ট প্রটেকশন উইংয়ের যুগ্ম পরিচালক ড. আমিনুর ইসলাম।

এতে প্রথম ওষুধ ডেলটামেথ্রিন ১ দশমিক ২৫ শতাংশ ইউএলভি’র তিনটি খাঁচায় অজ্ঞান হওয়া বা নক ডাউন মশার শতকরা সংখ্যা ছিল যথাক্রমে ৮৪ হাজার ৯২ এবং ৮২। দ্বিতীয় ওষুধ মেলাথিয়ন ৫ শতাংশ আরএফভি’র তিনটি নমুনায় নক ডাউন হওয়া মশার শতকরা সংখ্যা যথাক্রমে ৯২ হাজার ১০০ এবং ১০০। সবশেষ টেট্রামিথইনের তিনটি নমুনায় নক ডাউন হওয়া মশার শতকরা সংখ্যা যথাক্রমে ৯০ হাজার ১০০ ও ৮৪।পরীক্ষা শেষে মোহাম্মদ নুরুজ্জামান সাংবাদিকদের বলেন, মশার ওষুধ আমরা তিনভাবে পরীক্ষা করিÑ ফিল্ড টেস্ট মানে আজ যা হলো এরপর ল্যাব টেস্ট ও সবশেষ প্ল্যান্ট প্রটেকশন টেস্ট। পরীক্ষায় প্রতিটি নমুনাতেই নক ডাউন হওয়া মশার শতকরা সংখ্যা ৮০ এর ওপরে। অর্থাৎ প্রাথমিকভাবে পাস।

অন্যদিকে এই পরীক্ষায় ওষুধ নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন দুই বিশেষজ্ঞ ডা. মিনতি সাহা ও ড. আমিনুর ইসলাম। সিটি করপোরেশনের ব্যবহার করা ওষুধে মশা মরে না। এ নিয়ে বিস্তর সমালোচনার মধ্যে নতুন এই ওষুধের পরীক্ষা চালানো হলো।

"