ছাত্রদলের দুই গ্রুপে ধাওয়া পাল্টাধাওয়া : পদপ্রত্যাশীরা লাঞ্ছিত, ককটেল বিস্ফোরণ

প্রকাশ : ২৫ জুন ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার, বয়সসীমা তুলে দিয়ে নিয়মিত কমিটির দাবিতে নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ফের অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে ছাত্রদলের বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা। গতকাল সোমবার বেলা ১১টার বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা পল্টনে জড়ো হতে শুরু করলে সংঘবদ্ধ হতে থাকে নিয়মিত ছাত্রদের একটি অংশও। বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জড়ো হয়ে অবস্থান নেওয়ার কিছুক্ষণ পর ছাত্রদলের দুইপক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। একপর্যায়ে সেখানে একাধিক ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এদিকে আগামীকালও কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে বিক্ষুব্ধরা।

গতকাল সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সহ¯্রাধিক নেতাকর্মীর একটি মিছিল নিয়ে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে আসেন। তারা কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিয়ে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। এ সময় কার্যালয়ের কলাপসিবল গেট বন্ধ করে দেন। এক পর্যায়ে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিয়ে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা কাউকে ঢুকতে দেননি। কার্যালয়ের ভেতরে আগে থেকেই ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও মহানগর বিএনপির কয়েকশ নেতাকর্মী অবস্থান নেন। কার্যালয়ের আশপাশে ছাত্রদল এবং বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা অবস্থান নেন।

বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের ভেতরে আগে থেকেই উপস্থিত ছিলেন দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, ছাত্রদলের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদের।

এ সময় আন্দোলনকারীরা কার্যালয়ের গেট আটকানোর সময় দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হয়। ভেতরে অবস্থানরত ও বাইরের আন্দোলনকারী ছাত্রদল নেতাকর্মীদের মধ্যে এ সময় টানাহেঁচড়া, ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। ছাত্রদল নেতাদের বাধার মুখে কার্যালয়ে ঢুকতে পারেননি বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন। ফজলুল হক মিলন বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীদের শান্ত করতে উদ্যত হলেও ব্যর্থ হন। ছাত্রদল নেতাকর্মীরা এ সময় মিলনকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আপনি সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। পরবর্তী কাউন্সিলে আপনার জুনিয়রদের ভাইস চেয়ারম্যানসহ অনেক পদ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আপনাকে সাংগঠনিক সম্পাদক পদেই রাখা হয়েছে। এগুলো আওয়ামী লীগের চক্রান্ত। দলের মধ্যে যারা সরকারের দালাল রয়েছে তাদের বহিষ্কার করতে হবে। রিজভীকে দল থেকে বের করে দেন তাহলে পার্টি শান্ত হবে। পার্টিতে আর কোনো সমস্যা থাকবে না।

বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীদের অবস্থান কর্মসূচি শেষ হওয়ার কিছুক্ষণ পর নয়াপল্টনে বিএনপির অফিসের সামনে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। সেখানে মারধরের শিকার হয়েছেন ছাত্রদলের কাউন্সিলের পক্ষে অবস্থান নেওয়া কয়েকজন পদপ্রত্যাশী। বেলা দেড়টার দিকে কর্মসূচি শেষ করে নয়াপল্টন থেকে নাইটিঙ্গেল মোড়ের দিকে যাওয়ার সময় বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পাঁচটি ককটেলের বিস্ফোরণ হয়। তবে কে বা কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছেন তা জানা যায়নি। এছাড়া ছাত্রদলের পদপ্রত্যাশীদের কয়েকজন কার্যালয় থেকে বের হওয়ার চেষ্টা করলে বিক্ষোভকারীরা তাদের মারধর করেন। আজকের মতো অবস্থান কর্মসূচি শেষ করে আজ মঙ্গলবার আবারও অবস্থানের ঘোষণা দেন বিক্ষুব্ধরা। বিক্ষুব্ধরা চলে যাওয়ার পর ছাত্রদলের কাউন্সিলকে স্বাগত জানিয়ে নয়াপল্টনে আবারও পদপ্রত্যাশীরা মিছিল বের করেন। তারা সকালেও একবার মিছিল করেন।

২২ জুন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ছাত্রদলের ১২ নেতাকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়। গত রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রদলের কাউন্সিলের ঘোষণা দেয় বিএনপি। এতে বলা হয়, আগামী ১৫ জুলাই ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সংসদের কাউন্সিল। ওই দিন সকাল ৯টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত শুধু সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে ভোট হবে। বিএনপি ৩ জুন ছাত্রদলের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি ভেঙে দেওয়ার পাশাপাশি কাউন্সিলের মাধ্যমে সংগঠনটির নতুন নেতৃত্ব নির্বাচনের ঘোষণা দেয়। এরপর থেকেই বিলুপ্ত কমিটির নেতারা বয়সসীমা না রেখে ধারাবাহিক কমিটি গঠনের দাবিতে বিক্ষোভ করে আসছেন।

 

 

"