বিনোদন কেন্দ্রে ঢল

রাজশাহীতে প্রথম কর্মদিবসে চাকরিজীবীরা

প্রকাশ : ১০ জুন ২০১৯, ০০:০০

রাজশাহী ব্যুরো

ঈদুল ফিতরের টানা ছুটি শেষে গতকাল রোববার শুরু হয়েছে প্রথম কর্মদিবস। এদিন অফিস-আদালত খুললেও অফিসপাড়ায় ভিন্ন দৃশ্য দেখা গেছে। বেশিরভাগ দফতরে চাকরিজীবীদের উপস্থিতি ছিল একেবারেই কম। তবে অনুপস্থিতির হার সরকারি দফতরে বেশি ছিল। নাড়ির টানে গ্রামের বাড়িতে ঈদ করতে যাওয়া কর্মজীবী মানুষরা এরই মধ্যে ফিরতে শুরু করেছেন। আগের মতো রাজশাহী শহর জাঁকজমকপূর্ণ হতে আরো দুই-তিন দিন লাগবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। তবে ঈদের দিন থেকেই রোদ-বৃষ্টি উপেক্ষা করে শিশু-কিশোর ও তরুণ-তরুণীসহ বিভিন্ন বয়সের মানুষের ঢল নামছে পদ্মাপাড় ও শিশুপার্কসহ নগরীর অন্যান্য বিনোদন কেন্দ্রে। আকাশে কখনো রোদ, কখনো মেঘ থাকলেও বিনোদন পিপাসুদের আটকানো যায়নি। আর দুপুর গড়িয়ে বিকেলের সূর্য পশ্চিম আকাশে নামার পর রাজশাহী মহানগরীর বিনোদন স্পটগুলোতে যেন তিল ধারণের ঠাঁই থাকছে না। এদিকে, ঈদের পর প্রথম কার্যদিবসে উপস্থিতি কম থাকায় বিভিন্ন দফতরের কাজ-কর্ম চলে ঢিলেঢালাভাবে। ছুটি শেষে অফিসে উপস্থিতিদের বেশিরভাগই সময় কেটেছে কোলাকুলি, ঈদের শুভেচ্ছা ও কুশলাদি বিনিময় করে। রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, নগর ভবন, রেল ভবন, পানি উন্নয়ন বোর্ড, রেশম বোর্ড, খাদ্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর, রাজশাহী উন্নয়ন ও বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, পুলিশ কমিশনার কার্যালয়, সড়ক ভবনসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কার্যালয়ে গিয়ে দেখা গেছে প্রায় একই চিত্র। তবে সোনালী ব্যাংক করপোরেট শাখার চিত্রটা এদের চেয়ে অনেকটাই ভিন্ন দেখা গেছে। এ অফিসের অধিকাংশ স্টাফদের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। অফিসে অনুপস্থিতির হার কম থাকার বিষয়ে রাজশাহী জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের এক কর্মকর্তা রোববার সকালে জানান জানান, ‘নির্ধারিত ছুটি শেষ হলেও অনেকেই ঐচ্ছিক ছুটি নিয়েছেন। যে কারণে অফিসে উপস্থিতি কম। আবার ছুটি শেষে অনেকেই শহরে এসে পৌঁছেছেন কিন্তু ঈদের পর প্রথম কার্যদিবসে যথাসময়ে তারা অফিসে আসতে পারেনি।

 

"