তৃণমূলের দুর্গে উত্থান বিজেপির

সব পরাজয় পরাজয় নয় : মমতা

প্রকাশ : ২৪ মে ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

পোস্টাল ব্যালট গোনা শুরু হতেই ইঙ্গিত এসেছিল, পশ্চিমবঙ্গে মিলে যেতে পারে বুথফেরত সমীক্ষার দেওয়া পূর্বাভাস। তারপর থেকে গণনা যত এগোচ্ছিল, ততই স্পষ্ট হয় বিজেপির বিরাট উত্থানের ইঙ্গিত। ভোটগণনা শেষে তৃণমূলের সঙ্গে বিজেপির কড়া টক্করের ছবি ওঠে আসে রাজ্যের প্রায় সব প্রান্ত থেকে। এদিকে লোকসভা নির্বাচনে বিজয়ীদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গতকাল বৃহস্পতিবার ভোটের ফল ঘোষণার পরে এক টুইট বার্তায় মমতা বিজয়ীদের শুভেচ্ছা জানান।

মমতা বলেন, বিজয়ীদের অভিনন্দন। তবে সব পরাজয়ই পরাজয় নয়। তৃণমূল নেত্রী আরো বলেন, নির্বাচনের ফল নিয়ে সার্বিকভাবে পর্যবেক্ষণের পর এ বিষয়ে আপনাদের সবার সঙ্গে কথা বলব। এবার পশ্চিমবঙ্গে মমতার তৃণমূল ৪২টি আসনের মধ্যে ২৩ আসন এবং বিজেপি পেয়েছে ১৭টি আসন। আর কংগ্রেসের থেকে ভোট শতাংশে সামান্য এগিয়ে থেকেও বামেরা আসনশূন্য হলো। শতাংশের বিচারে ভোটপ্রাপ্তির নিরিখে জোর চমক দিল বিজেপি। ভোটপ্রাপ্তির হারে বিজেপির ভোট ৩৯ শতাংশ আর তৃণমূল ৪৫ শতাংশের কাছাকাছি। শাসক দলের ভোটপ্রাপ্তির এই হার বেশ কিছুটা মিলছে ২০০৯ সালের নির্বাচনের সঙ্গে। সেই নির্বাচনে বামেদের বিপর্যস্ত করে তৃণমূল ইঙ্গিত দিয়েছিল, পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতার অলিন্দে পরিবর্তন আসন্ন। তৃণমূলের ভোটপ্রপ্তির হার ছিল ৩১ দশমিক ১৮ শতাংশ। তবে সেবার রাজ্যের ২৮টি আসনে তৃণমূল লড়েছিল। বাকি ১৪টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিল তৃণমূলের তৎকালীন জোটসঙ্গী কংগ্রেস এবং কংগ্রেস সেবার পেয়েছিল ১৩ দশমিক ৪৫ শতাংশ ভোট। আর তদানীন্তন শাসক দল বামফ্রন্টের প্রাপ্ত ভোটের হার সেবার ছিল ৪৩ দশমিক ৩০ শতাংশ। অর্থাৎ এবার তৃণমূল যে রকম ভোট পেতে পারে বলে ইঙ্গিত মিলছে, তার কাছাকাছিই।

 

"