ঝালকাঠি ও নোয়াখালীতে গণপিটুনিতে নিহত ২

প্রকাশ : ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | আপডেট : ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:১০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক
ama ami

ঝালকাঠিতে গরু চোর সন্দেহে এবং নোয়াখালীতে ডাকাত সন্দেহে স্থানীয়দের গণপিটুনিতে দুজন নিহত হয়েছেন। তাদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি। প্রতিনিধিদের পাঠানো রিপোর্ট :

ঝালকাঠি : ঝালকাঠিতে গরু চোর সন্দেহে গণপিটুনিতে ৪৫ বছরের এক অজ্ঞাত ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। গত শুক্রবার রাত ৩টার দিকে সদর উপজেলার দিয়াকুল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। গতকাল শনিবার দুপুরে পুলিশ ওই ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে। নিহতের এখনো কোনো পরিচয় পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গভীর রাতে একটি ট্রলারে তিনজন ব্যক্তি সদর উপজেলার দিয়াকুল গ্রামে প্রবেশ করে। তারা স্থানীয় কৃষক তোফাজ্জেল হোসেন মৃধার বাড়িতে গিয়ে গোয়ালঘর থেকে একটি গরু চুরি করে নেওয়ার চেষ্টা করে। বিষয়টি টের পেয়ে তোফাজ্জেল হোসেন ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার শুরু করেন। এ সময় গ্রামবাসী চারদিক ঘিরে এক ব্যক্তিকে গরুসহ হাতেনাতে ধরে ফেলে। অন্য দুজন পালিয়ে যায়। আটক ব্যক্তিকে রাতেই গণপিটুনি দেয় গ্রামবাসী। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

নোয়াখালী : নোয়াখালীর সদর উপজেলার নোয়াখালী ইউনিয়নে ডাকাত সন্দেহে অজ্ঞাত (৪৫) ব্যক্তি স্থানীয়দের গণপিটুনিতে নিহত হয়েছেন। এ সময় ডাকাতদের হামলায় শাহজাহান (৪৮) নামের এক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান উদ্ধার করা হয়। গতকাল শনিবার সকালে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। গত শুক্রবার রাত ৩টার দিকে পশ্চিম চরউরিয়া গ্রামের ইকবাল সর্দারবাড়ি এলাকায় গণপিটুনির ঘটনা ঘটে। আহত মো. শাহজাহান ওই গ্রামের শেকু মিয়ার ছেলে। তাকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত এক সপ্তাহ ধরে নোয়াখালী ইউনিয়নের চর উরিয়া, পার্শ্ববর্তী মন্নাননগর ও এজবালিয়ার বিভিন্ন বাড়িতে প্রায় রাতে চুরি ও ডাকাতির ঘটনা ঘটে। গত দুই দিন আগে স্থানীয় লোকজনের উদ্যোগে ওই এলাকাগুলোতে পাহারার ব্যবস্থা করা হয়। প্রতিদিনের মতো গত শুক্রবার গভীর রাতেও এলাকাগুলোর বিভিন্ন স্থানে পৃথকভাবে পাহারা বসায় স্থানীয়রা। রাত আড়াইটার দিকে পশ্চিম চর উরিয়া গ্রামের আদর্শ কলোনির খলিল মিয়ার দরজা এলাকায় ১২-১৪ জনের একদল ডাকাত দেখতে পেয়ে তাদের ধাওয়া করে পাহারায় নিয়োজিত লোকজন। এ সময় ডাকাত দল শাহজাহান নামের এক ব্যক্তিকে ধরে পিটিয়ে জখম করে পালানোর চেষ্টা করে। পরে ইকবাল সর্দারের বাড়ি এলাকার একটি খেতের মধ্যে গিয়ে অজ্ঞাত (৪৫) ডাকাত সদস্যকে আটক করে গণপিটুনি দেয় লোকজন।

নোয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আতাউর রহমান নাছের বলেন, গত এক সপ্তাতে অন্তত ছয়টি বাড়িতে চুরি ও ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। সুধারাম মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন জানান, নিহত ব্যক্তিকে স্থানীয়রা শনাক্ত করতে পারেনি। ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করা হবে।

"