যত বিতর্ক, তত সুবিধা

শপথ শেষে নতুন অর্থমন্ত্রী

প্রকাশ : ০৮ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক
ama ami

অর্থ মন্ত্রণালয়ের নানা সিদ্ধান্তে বিতর্ক উঠলে সেটাকে ‘সুবিধায়’ রূপান্তরিত করে এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখছেন নতুন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। বঙ্গভবনে গতকাল সোমবার শপথ নেওয়ার পর তিনি বলেন, ‘আমার চ্যালেঞ্জ হলো, বিতর্ক থাকা। যত বেশি বিতর্ক থাকবে, তত আমার জন্য সুবিধা। চ্যালেঞ্জ থাকবে চ্যালেঞ্জগুলো অপরচুনিটিতে রূপান্তরিত করতে হবে। গত পাঁচ বছর আওয়ামী লীগ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করে আসা মুস্তফা কামালকে এবার অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গত রোববার নতুন মন্ত্রী ও তাদের দফতর প্রকাশের পর পরই মুস্তফা কামাল বলেছিলেন, তিনি অর্থ মন্ত্রণালয়কে খোলনলচে বদলে দেবেন। সোমবার শপথ গ্রহণের পর অর্থ মন্ত্রণালয়ের নানা রকম সিদ্ধান্ত নিয়ে নিজের পদক্ষেপের বিষয়ে জানতে চাইলে বিতর্ক নিয়েই এগোতে চান বলে জানান নতুন মন্ত্রী।

মুস্তফা কামাল বলেন, যারা সফল তারা চ্যালেঞ্জকে মোকাবিলা করে সফল হয়। যত বেশি চ্যালেঞ্জ আসবে তত বেশি আমাদের সফলতা আসবে। গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ জয়ের পর অর্থমন্ত্রী কে হচ্ছেন, সেই আলোচনার মধ্যে রোববার ৭২ বছর বয়সী মুস্তফা কামালের নাম ঘোষণায় কৌতূহলের অবসান ঘটে। এবারসহ চারবার কুমিল্লা থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন মুস্তফা কামাল। চার্টার্ড একাউনটেন্ট মুস্তফা কামালের ক্রীড়া সংগঠক হিসেবেই পরিচিতি বেশি।

আ হ ম মুস্তফা কামাল লোটাস কামাল নামেই দেশ-বিদেশে তার বেশ পরিচিতি। বিশিষ্ট ক্রিকেটানুরাগী যিনি দুই দশকের অধিক আবাহনী ক্রিকেট কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন। দেশের একজন খ্যাতনামা চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট আ হ ম মুস্তফা কামাল ১৯৪৭ সালের ১৫ জুন কুমিল্লার নবগঠিত লালমাই উপজেলা বাগমারা ইউনিয়নের দুতিয়াপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা মরহুম বাবরু মিয়া, মা মরহুমা সায়রা বেগম। তিনি স্থানীয় দত্তপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করেন। পরে বাগমারা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৬২ সালে এসএসসি, পরে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি, ১৯৬৪-১৯৬৭ সালে চট্টগ্রাম সরকারি কমার্স কলেজ থেকে বিকম (অনার্স) ডিগ্রি লাভ করেন।

১৯৬৭-৬৮ শিক্ষাবর্ষে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অ্যাকাউন্ট্যান্সি ও আইন বিভাগে কৃতিত্বের সঙ্গে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। লোটাস কামাল ১৯৭০ সালে তদানীন্তন পাকিস্তানে (পূর্ব এবং পশ্চিম পাকিস্তান) চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্সি (সিএ) পরীক্ষায় মেধা তালিকায় সম্মিলিতভাবে প্রথম স্থান অর্জন করেন।

রাজনীতিতে তার হাতেখড়ি ছাত্রজীবন থেকেই। কলেজ জীবনের পুরো সময়ই তিনি ছাত্র রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। ১৯৬৬ সালের ৬ দফা আন্দোলন, ৬৯-এর গণ-অভ্যুত্থান এবং ৭০-এর ঐতিহাসিক নির্বাচনের সময় তিনি আওয়ামী লীগের একজন বিশিষ্ট সংগঠক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে তিনি ১৯৯৬ সালে তৎকালীন কুমিল্লা-৯ (পরিবর্তিত হয়ে বর্তমানে কুমিল্লা-১০) নির্বাচনী এলাকা থেকে প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এ সময় তিনি পাবলিক অ্যাকাউন্ট্যাস কমিটির সদস্য, বিনিয়োগ বোর্ডের সদস্য, প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের সদস্য, অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য, জাকাত বোর্ডের সদস্য এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৪ সাল থেকে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত আছেন।

২০০৬ সালের ১২ মে তিনি কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব লাভ করেন। পরে ২০১৬ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে তিনি কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি কুমিল্লা-১০ নির্বাচনী এলাকা থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে দ্বিতীয়বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৯ থেকে ২০১৩ সময়কালে তিনি অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। তিনি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কুমিল্লা-১০ আসন থেকে তৃতীয়বারের মতো বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। সর্বশেষ সদ্য সমাপ্ত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও তিনি একই আসন থেকে ৪ লক্ষাধিক ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। লোটাস কামাল ২০১৪ সালের জানুয়ারি থেকে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। পারিবারিক জীবনে ৩ ভাই ও ১ বোনের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। তার স্ত্রী কাশমেরী কামাল একজন সফল ব্যবসায়ী। দুই কন্যাসন্তানের মধ্যে বড় মেয়ে কাশফী কামাল সপরিবারে প্রবাসী ও ছোট মেয়ে নাফিসা কামাল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের চেয়ারপারসন।

 

"