অর্থ তছরুপ করে ব্রিটেনে গিয়ে থাকার দিন শেষ

প্রকাশ : ০৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

গোল্ডেন ভিসার মাধ্যমে চীন, রাশিয়া আর ভারতের বিনিয়োগকারীরা ইংল্যান্ডের পাকাপাকি বাসিন্দা হয়ে যাচ্ছিলেন। এবার সেই গোল্ডেন ভিসা ব্যবস্থাই বাতিল করে দিল ব্রিটিশ সরকার। গত বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকেই বাতিল হয়ে যায় এই বিশেষ ভিসা ব্যবস্থা। ইদানিং নিজ নিজ দেশে ঋণ খেলাপের অভিযোগ উঠলেই ব্রিটেনে গিয়ে থাকতে শুরু করছিলেন চীনা, রুশ এবং ভারতীয় বিনিয়োগকারীরা। সেই ভয় থেকেই ব্রিটিশ সরকারের তরফে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। খবর কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকার। ২০০৮ সালে গোল্ডেন ভিসা ব্যবস্থার সূচনা করে ব্রিটিশ সরকার। ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর অবধিও তিন দেশের বিনিয়োগকারীদের দেওয়া হয় এই ভিসা। প্রথমে চীনা এবং রুশ বিনিয়োগকারীদেরই গোল্ডেন ভিসা দেওয়া হয়েছিল। তবে তার কিছুদিনের মধ্যেই ৭৬ জন ভারতীয় বিনিয়োগকারীকে এই সুবিধা দেওয়া হয়।

দুই বছরের জন্য এই ভিসা পেতে গেলে বিনিয়োগকারীদের ৯ কোটি টাকা দিতে হতো। তিন বছরের জন্য ৪৫ কোটি টাকা এবং ইংল্যান্ডে পাঁচ বছরের বাসিন্দা হতে একজন বিনিয়োগকারীকে ৯০ কোটি টাকা দিতে হতো ব্রিটিশ সরকারকে। যদিও ২০১৪ সালে এই দু’বছরের গোল্ডেন ভিসা ব্যবস্থায় টাকার অঙ্ক দ্বিগুণ করে দেওয়া হয়। অর্থাৎ ৯ কোটি টাকা থেকে বেড়ে তা হয়ে যায় ১৮ কোটি টাকা। ২০১৫ সালেই এই গোল্ডেন ভিসার একটি রিভিউ প্রকাশিত হয়। আর সেই রিভিউ সামনে আসার পরেই সন্দেহ হয় সরকারের। কর্মকর্তাদের তদন্ত করার নির্দেশও দেওয়া হয়। আর তখনই এই ভিসার নিয়মে বেশকিছু বদল করে আরো কড়া করে হয়েছিল ব্রিটিশ সরকারের তরফে। সেই রিভিউয়ে পরিষ্কার করে বিদেশে গচ্ছিত ‘ডার্টি মানি’র কথা বলা হয়েছিল। ব্রিটেনের অভিবাসন দফতরের মন্ত্রী ক্যারোলিন নোকসের কথায়, ‘প্রকৃত বিনিয়োগকারীরা যারা ইংল্যান্ডে এসে আমাদের অর্থনীতি এবং ব্যবসায় সাহায্য করতে চায়, ব্রিটিশ সরকার সব সময়ই তাদের পাশে আছে। ইংল্যান্ডের অভিবাসন আইন বহির্ভূত কোনো কাজ করার চেষ্টা করা হলে তার উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে, সেটা বহু আগেই আমরা পরিষ্কার বলে দিয়েছিলাম।’

"