চক্রের ৪ সদস্য গ্রেফতার

বিদেশ থেকে প্রাণী এনে পাশের দেশে পাচার করা হয়

প্রকাশ : ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

আল-আমিন মিন্টু, রূপগঞ্জ

নারায়ণগঞ্জ আদজীনগরি র‌্যাব-১১, এর একটি আভিযানিক দল গত শনিবার ঢাকার উত্তরায় অভিযান চালিয়ে আন্তর্জাতিক বন্যপ্রাণী পাচারকারী চক্রের চার সদস্য গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতাররা হলেন জাহিদুল হাসান, খন্দকার বুলবুল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম ও মাসুদুর রহমান। এদের জাবানবন্দি থেকে প্রাণী চোরাকারবারিদের গোপন চক্র ও কর্মকান্ডের সন্ধান পেয়েছে র‌্যাব ও পুশিল।

গতকাল রোববার নারায়ণগঞ্জ র‌্যাব-১১ সূত্রে জানা যায়, গ্রেফতারকৃতদের নিকট হতে আমদানি নিষিদ্ধ বিরল প্রজাতির দুটি টোকান পাখি ও একটি ইকলেকটাস প্যারোট পাখি উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত দুটি টোকান পাখির আনুমানিক মূল্য ৩০ লাখ টাকা ও ইকলেকটাস পাখির আনুমানিক মূল্য এক লাখ টাকা।

এর আগে গত ১৪ জুন নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানাধীন এলাকা হতে দুটি চিতাবাঘসহ আন্তর্জাতিক বন্যপ্রাণী পাচারচক্রের দুই সদস্য আরিফুল ইসলাম ও শওকত ইমরান মিঠুকে গ্রেফতার করা হয়।

মামলা তদন্তে ও গ্রেফতারকৃত আসামিদের জবানবন্দিতে উদ্ধারকৃত চিতাবাঘ রাখার সঙ্গে জড়িত তরিকুল ইসলাম নামের এক পাচারকারীর নাম জানা যায়। গত ১ নভেম্বর ঢাকার ধানমন্ডি এলাকায় র‌্যাবের অভিযানে তরিকুল ইসলাম গ্রেফতার হয় এবং পরবর্তী দিন গ্রেফতারকৃত তরিকুল আদালতে উদ্ধারকৃত চিতাবাঘগুলো পাচারে জড়িত মর্মে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে।

এ ছাড়াও তার জবানবন্দিতে বেশকিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য ও আন্তর্জাতিক বন্যপ্রাণী পাচারচক্রের সঙ্গে জড়িত অনেকের নাম জানা যায়। র‌্যাব-১১ দাবি করেন, প্রাথমিক অনুসন্ধান ও গ্রেফতারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে এই পাচারকারী চক্র বিদেশ থেকে পশুপাখি আমদানির আড়ালে বিমানবন্দরের সিঅ্যান্ডএফের সঙ্গে সংঘবদ্ধভাবে আমদানি নিষিদ্ধ বিরল প্রজাতির পশুপাখি এনে পার্শ্ববর্তী দেশে পাচার করে আসছে।

 

"