নিজেকে সবচেয়ে বেশি নির্যাতিত বললেন এরশাদ

প্রকাশ : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএনপি সরকারের শাসনামলে দুর্নীতির দায়ে কয়েক বছর কারাবাসের প্রসঙ্গ টেনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ নিজেকে দেশের ‘সবচেয়ে বেশি নির্যাতিত’ রাজনীতিবিদ হিসেবে বর্ণনা করেছেন। কিন্তু ‘নিঃশেষ’ হয়ে যাননি দাবি করে মানুষের ‘দুঃখ-দুর্দশা লাঘব’ করার সুযোগ চেয়েছেন সাবেক এই রাষ্ট্রপতি।

ঢাকা-১৭ আসনে নির্বাচনী গণসংযোগের অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার কচুক্ষেতের রজনীগন্ধা সুপার মার্কেটে জাতীয় পার্টি কাফরুল থানা আয়োজিত এক সমাবেশে এরশাদ এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘এ দেশের রাজনীতিতে আমার চেয়ে নির্যাতিত আর কেউ নেই। ২৮ বছর ক্ষমতার বাইরে থাকলে একটি রাজনৈতিক দলের অস্তিত্বই বিলীন হয়ে যাওয়ার কথা। আমরা হইনি। আল্লাহর অশেষ রহমতে এত নির্যাতনের পরও আমি বেঁচে আছি। নির্যাতনের পর কোনো মানুষ বাঁচতে পারে না।’ নাজিমউদ্দিন সড়কে এখন যে কারাগারে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গত ফেব্রুয়ারি থেকে বন্দি আছেন, খালেদা জিয়ার শাসনামলে সেখানেই কেটেছে এরশাদের হাজতবাসের দিনগুলো।

ছয় বছর কারাগারে থেকে ১৯৯৬ সালে মুক্তি পাওয়ার পর আবারও রাজনীতিতে সক্রিয় হন তিনি। যে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির যুগপৎ আন্দোলনে এরশাদ সরকারের পতন ঘটেছিল তাদের কাছে এখনো তিনি গুরুত্বপূর্ণ। ২০০৯-১৩ মেয়াদে মহাজোট সরকারের শরিক হিসাবে ছিল এরশাদের দল জাতীয় পার্টি। আর ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির পর আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে গঠিত সরকার ও বিরোধী দলÑ দুই জায়গাতেই জাতীয় পার্টিকে দেখা যাচ্ছে।

জাতীয় পার্টির সময়ের উন্নয়নের বৃত্তান্ত তুলে ধরতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত বর্তমান সরকারেরও সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, ‘আজকে পত্রিকার পাতা খোলেন। কোনো সুখবর নেই। রাস্তায় মানুষ মরছে অথচ সরকার ভ্রƒক্ষেপ করছে না।’

 

লন্ডনভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ওয়েলথএক্সের একটি প্রতিবেদনের তথ্য তুলে ধরে এরশাদ বলেন, ‘বলা হচ্ছে, আমরা নাকি সবচেয়ে বিত্তশালী লোক। এই টাকা এলো কোথা থেকে? এই টাকা তো চুরি করা টাকা, যা আপনাদেরই টাকা।’

দেশে কোনো ‘সুশাসন নেই’ এমন অভিযোগ এনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমার বয়স হয়েছে। কিন্তু আমি আবার মাঠে নেমেছি। আপনাদের দুঃখ-দুর্দশা দূর করতে চাই। দেখাতে চাই উন্নয়ন কাকে বলে, সুশাসন কাকে বলে।’

"