গ্রাহকের কোটি টাকা নিয়ে উধাও সীতাকুন্ডে ‘ইয়োবল’

প্রকাশ : ৩১ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

সীতাকুন্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি
ama ami

ইউনিপে-টু, ডেসটিনি ও যুবক-এর মতো ‘ইয়োবল’ নামের একটি অর্থলগ্নি প্রতিষ্ঠান চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে গ্রাহকের কোটি টাকা নিয়ে গাঢাকা দিয়েছে। সমাজ উন্নয়ন সংস্থা ‘ইপসা’র অঙ্গসংগঠন হিসেবে ইয়োবল গত ৪ বছর ধরে সীতাকুন্ডে কলেজ রোডস্থ মহাদেবপুর এলাকায় অফিস স্থাপন করে অর্থলগ্নি ব্যবসা শুরু করে। গ্রাহকদের উচ্চ হারে লভ্যাংশ প্রদান করার লোভনীয় প্রস্তাব দিয়ে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে গত এক বছর ধরে প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা শামছুদ্দিন ভূঁইয়া টুটুল, মো. নূরনবীসহ অফিস সহকারীরা পলাতক রয়েছে। তার আগে প্রতিষ্ঠানটি তাদের জলাশয় ও পুকুর ভরাট করে প্লট বিক্রি করে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেয়। এ ছাড়া পরিবেশ সচেতনতামূলক অনুষ্ঠানের নাম ভাঙ্গিয়ে বিভিন্ন দাতাদেশ থেকেও বড় অঙ্কের অর্থ নেয় বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অর্থলগ্নি প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা ও ইপসার রেডি সাগর গিরির ম্যানেজার এবং অফিসটির ভবনের মালিক শাহ সুলতান শামীম অভিযোগ করে বলেন, ‘গত কয়েক মাস আগে অফিসটি হঠাৎ বন্ধ করে চলে যায়। আমাদের প্রায় ১৫ মাসের ঘর ভাড়া, বিদ্যুৎ বিল ও পানির বিল বকেয়া রয়ে যায়। এই নিয়ে আমাদের পারিবারিক কলহের সৃষ্টি হয়েছে। ইপসার সংশ্লিষ্ট কর্তকর্তাদের দাবি, ইয়োবল তাদের অঙ্গসংগঠন নয়। কিন্তু শামছুদ্দিন ভূঁইয়া টুটুল একই সঙ্গে ইপসার সভাপতি এবং ইয়োবল ব্যবস্থাপনা পরিচালক। জানতে চাইলে তার মুটোফোনে একাধিক কল করলেও বন্ধ পাওয়া যায়।

জানতে চাইলে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. কামরুজ্জামান বলেন, ‘পরিবেশ বিপর্যয় ঘটিয়ে ইয়োবল পুকুর ভরাট করে থাকলে আইনগত ব্যবস্থা নেব।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারিকুল আলম বলেন, ‘ইয়োবলের কর্তকর্তাদের সঙ্গে আমাদের পরিচয় নেই। আমরা ঘটনাটি খতিয়ে দেখব।’

 

"