প্রস্তাবিত নেত্রকোনা মেডিকেল কলেজ মোহনগঞ্জে করার দাবি

প্রকাশ : ২৯ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক
ama ami

প্রস্তাবিত নেত্রকোনা মেডিকেল কলেজটি জেলার সদরের পরিবর্তে মোহনগঞ্জে করার দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী। তারা বলছেন, সেখানে মেডিকেল কলেজটি স্থাপন করা হলে ওই এলাকার লাখ লাখ হাওরবাসী চিকিৎসাসেবা পাবে। কারণ মোহনগঞ্জকে বলা হয় হাওর অঞ্চলের রাজধানী।

গত রোববার স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম ঢাকায় সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, সারা দেশে নতুন আরো চারটি মেডিকেল স্থাপন করা হবে। এসব কলেজ নেত্রকোনা, নওগাঁ, মাগুরা ও নীলফামারী জেলায় স্থাপনের সম্মতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এর আগে বর্তমান সরকার নেত্রকোনায় একটি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের অনুমোদন দিয়েছেন। আর নেত্রকোনায় মেডিকেল কলেজ স্থাপনের প্রস্তাবনায় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছিলেন মোহনগঞ্জের সন্তান প্রধানমন্ত্রী অফিসের সচিব সাজ্জাদুল হাসান। মোহনগঞ্জের মানুষ মনে করে এ ঘোষণার পেছনে ঘনিষ্টভাবে কাজ করেছেন সাজ্জাদুল হাসান।

এলাকাবাসীর দাবি, হাওরের পানিবন্দি মানুষ বহু দিন ধরে চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত। কলেজটি মোহনগঞ্জ হলে সুদূর তাহেরপুর, ধর্মপাশা, খালিয়াজুর, মদন, আটপাড়া, বারহাট্টা, মধ্যনগর, নেত্রকোনার মানুষ ছাড়াও সুনামগঞ্জের ১২ লাখ নিম্নবর্গের মানুষ উপকৃত হবে। এছাড়াও এখানে থাকা খাওয়া অনেক সহজলভ্য, পরিবেশও বেশ অনুকূলে। মোহনগঞ্জের যাতায়াত ব্যবস্থাও এখন অনেক উন্নত। ট্রেন ও বাসে খুব ভালোভাবে যাতায়াত করা যায় এখানে। মোহনগঞ্জে মেডিকেল কলেজটি স্থাপন করা হলে হাওরের সুবিধাবঞ্চিত মানুষ খুব সহজে কম সময়ে চিকিৎসাসেবা নিতে পারবে।

এ বিষয়ে মোহনগঞ্জের কৃতী সন্তান ও উত্তরা আওয়ামী লীগের তরুন নেতা রিকু খান বলেন, ‘আমরা এ উন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসানকে ধন্যবাদ জানাই। বর্তমান সরকার নেত্রকোনাবাসীর জন্য একটি মেডিকেল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় করার যে পদক্ষেপ নিয়েছে তা সম্ভব হয়েছে সাজ্জাদ স্যারের জন্যই। এমনটাই আমি মনে করি। তবে উনার কাছে বিনীত দাবি, নতুন ঘোষিত মেডিকেল কলেজটি যাতে মোহনগঞ্জে করা হয়। কারণ এ অঞ্চলে কলেজটি স্থাপন হলে হওরের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের অনেক উপকার হবে।

"